বিশ্বনাথের প্রথম অনলাইন পত্রিকা

খোঁজ মেলেনি ডুবে যাওয়া লঞ্চের, স্বজনদের বিক্ষোভ

35124_spমুন্সীগঞ্জের পদ্মা নদীতে তিন শতাধিক যাত্রী নিয়ে ডুবে যাওয়া পিনাক-৬ এর এখনও খোঁজ মেলেনি। দীর্ঘ এক দিন পেরিয়ে গেলেও লঞ্চটি শনাক্ত করতে পারেনি উদ্ধারকারীরা। ঘটনাস্থলে বসানো জেলা প্রশাসনের ক্যাম্প থেকে সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত নিখোঁজ ১২০ জনের তালিকা করা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

এদিকে দেড় শতাধিক যাত্রী নিখোঁজ থাকলেও এ পর্যন্ত দুই জনের লাশ উদ্ধার হওয়ায় গত রাত থেকে বিক্ষোভ করছেন নিখোঁজের স্বজনরা। বিভিন্ন গণমাধ্যমে লাশ উদ্ধারের বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচার হওয়ায় একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের সংবাদ কর্মীকে মারধর করেন তারা। এছাড়া উদ্ধার তৎপরতায় অবহেলার অভিযোগ তুলে ঢাকা-মাওয়া সড়ক অবরোধ করেন স্বজনরা। সকাল সাড়ে সাতটা থেকে সাড়ে আটটা পর্যন্ত এক ঘণ্টা অবরোধ করে রাখেন তারা। পরে পুলিশ প্রশাসন তাদের দাবি অনুযায়ী যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেন তারা। এদিকে রাত ৯টায় উদ্ধারকারী জ্হাাজ রুস্তম ঘটনাস্থলেও পৌছলেও মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান স্থগিত ছিল। সকাল ৮টা থেকে জাহাজটি উদ্ধার অভিযান ফের শুরু করে।

আজ সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাহজাহান খান। তিনি সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, নদীর পানি ঘোলা হওয়ায় লঞ্চটি শনাক্ত করা সম্ভব হচ্ছে না। লঞ্চটি খোঁজার জন্য চট্টগ্রাম থেকে নৌবাহিনীর উদ্ধারকারী জাহাজ জরিপ-১১ রওনা হয়েছে। ওই জাহাজটি ২৫০ মিটার পর্যন্ত সার্চ করতে পারে। এদিকে প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে উদ্ধার কাজ ব্যাহত হচ্ছে। দরিতে ইট বেঁধে জাহাজটি শনাক্ত করার চেষ্টা করছেন ডুবুরিরা।

এদিকে সোমবার দুর্ঘটনার পরপরই নূসরাত জাহান হীরা (২০) নামের এক মেডিকেল ছাত্রী এবং আনুমানিক ৫০ বছর বয়সী এক নারীর লাশ পাওয়া যায়। এরপর আর নতুন কোন মৃতদেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি বলে উদ্ধারকর্মীরা জানান। এদিকে নিহত প্রত্যেকে এক লাখ ২৫ হাজার টাকা করে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

AFTER NEWS
You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.