বিশ্বনাথের প্রথম অনলাইন পত্রিকা

ওসমানীনগরে প্রবাসীর অর্থায়নে রাস্তায় মাটি ভরাট কাজ শুরু

ওসমানীনগর সংবাদদাতা :: ওসমানীনগরে যুক্তরাজ্য প্রবাসী ছাবির আহমদ এর নিজস্ব অর্থায়নে সাদীপুর-সুন্দিখলা রাস্তায় এক কিলোমিটার কাঁচা সড়কে মাটি ভরাট কাজ শুরু হয়েছে। এর আগে বিভিন্ন সময়ে তিনি একই সড়কে প্রায় ৩কিলোমিটার মাটি ভরাট করিয়েছিলেন। তার এ উন্নয়নমূলক কাজের জন্য সাধুবাদ জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

জানা যায়, উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের সাদিপুর-সুন্দিখলা রাস্তা দিয়ে উপজেলার নিম্নাঞ্চলের সাদিপুর, সুন্দিখলা, মোকামপাড়া,গুজাতলী, সম্মানপুর, নোয়াগাও, ভেরারচর বাজার এর কয়েক হাজার মানুষ প্রতিনিয়িত যাতায়াত করেন। কিন্তু রাস্তাটি কাঁচা হওয়ায় সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এলাকাবাসীকে। এসব গ্রামের শিক্ষার্থী ও সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ লাঘবের জন্য সুন্দিখলা গ্রামের মরহুম ইউনুছ আলীর ছেলে যুক্তরাজ্য প্রবাসী ছাবির আহমদ এগিয়ে আসেন। তিনি বিগত বছরগুলোর বিভিন্ন সময়ে তার ব্যক্তিগত অর্থায়নে সাদীপুর থেকে প্রায় সুন্দিখলা পর্যন্ত ৩কিলোমিটার কাঁচা রাস্তায় মাটি ভরাট করে দিয়েছেন। এবার তিনি একই রাস্তায় প্রায় ৩লক্ষ টাকা ব্যয়ে আরোও ১কিলোমিটার মাটিভরাট কাজ শুরু করেছেন।

স্থানীয় যুবলীগ নেতা কায়ছার আহমদ জানান, ব্যক্তিগত অর্থায়নে ছাবির আহমদ প্রতিবছরই রাস্তার মাটি ভরাট কাজসহ এলাকার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা তার উন্নয়নমূলক কাজে সাধুবাদ জানাই।

এলাকার সমাজকর্মী শহিদ আহমদ জানান, আমাদের এলাকার অনেক শিক্ষার্থী বর্ষার মৌসুমে কাদা মাটির রাস্তা দিয়ে স্থানীয় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্টানে যেতে সমস্যা পোহায়। এলাকার বিভিন্ন গ্রামের অসুস্থ রোগীদেও হাসপাতালে নিয়ে যেতে সম্যস্যা হয়। রাস্তা কাঁচা থাকার কারণে স্থানীয় ভেরারচর বাজারে বিভিন্ন কোম্পানীর প্রতিনিধিরা তাদের মালামাল নিয়ে আসেননি। এসব দিক বিবেচনা করে আমার চাচাত ভাই তার ব্যক্তিগত অর্থায়নে রাস্তার মাটি ভরাট করে দিচ্ছেন।

সাদীপুর ইউনিয়নের সাবেক সদস্য আক্কাস আলী জানান, প্রতিবার বর্ষা আসলে রাস্তাটি বিভিন্ন স্থানে ভেঙ্গে যায়। স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে রাস্তায় উল্লেখ করার মতো মাটি ভরাট কাজ করা হয়নি। আমার ভাতিজা যুক্তরাজ্য প্রবাসী ছাবির আহমদ এলাকার মানুষের দুঃখ দুর্দশা দূরিকরণের জন্য বিগত বছরসমূহে প্রায় ৩কিলোমিটার কাঁচা সড়ক মাটি ভরাট করে দিয়েছেন। বর্তমানে আরোও ১কিলোমিটার রাস্তার মাটি ভরাট কাজ শুরু করেছেন।

প্রবাসী ছাবির আহমদ বলেন, আল্লাহ আমাকে সুযোগ দিয়েছেন এজন্য করে দিতে পারছি। আমাদের পরিবারের পক্ষ থেকে আমার বড় ভাই সালেহ আহমদ এর মাধ্যমে এলাকার রাস্তাঘাট নির্মাণ, এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ স্থাপন, শিক্ষা উন্নয়ন কাজসহ বিভিন্ন মানুষের ঘর বাড়ি নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। আমার কাছে সুযোগ থাকায় আমি রাস্তার উন্নয়নে অংশ নিতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি।


Endofcontent

Endofcontent
You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!