AM-ACCOUNTANCY-SERVICES-BBB

বিশ্বনাথে প্রতিবন্ধীদের সেবা দিতে ‘ম্যানকাইন্ড কেয়ার হোম’র উদ্বোধন

বিশ্বনাথ নিউজ ২৪ ডট কম :: নভেম্বর - ৯ - ২০২৩ | ১০: ২৩ অপরাহ্ণ

ম্যানকাইন্ড কেয়ার হোম

বিশ্বনাথনিউজ২৪ :: প্রতিবন্ধীদের স্বাভাবিক জীবনের পূর্ণ্যতা দিতে ও তাদেরকে দক্ষ কারিগর হিসেবে গড়ে তুলে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে দেশের প্রথম প্রতিষ্ঠান হিসেবে সিলেটের বিশ্বনাথে ‘ম্যানকাইন্ড কেয়ার হোম’র যাত্রা শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৯ নভেম্বর) বিকেলে রামপাশা ইউনিয়নের আজিজনগর গ্রামে প্রধান অতিথি হিসেবে ‘ম্যানকাইন্ড ফাউন্ডেশন’র অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ‘ম্যানকাইন্ড কেয়ার হোম’র উদ্বোধন করেন বিশ্বনাথ পৌরসভার মেয়র মুহিবুর রহমান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে পৌর মেয়র মুহিবুর রহমান বলেন, প্রতিবন্ধীরা সমাজের বুঝা নয়। তাদেরকে সঠিকভাবে গড়ে তুলতে পারলে প্রতিবন্ধীরাও সমাজ পরিবর্তনে গূরুত্বপূর্ণ ‍ভূমিকা রাখতে পারবে। আর সেজন্য আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্পেশাল বরাদ্ধ দিয়ে বৃহত্তর আমতৈল গ্রামে থাকা প্রতিবন্ধীদের জীবন-মানের উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন। সরকারের পাশাপাশি আমাদের সবাইকে প্রতিবন্ধীদের পাশে দাঁড়াতে হবে, যেমন করে এগিয়ে ‘ম্যানকাইন্ড কেয়ার হোম’।

ডা. নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সংগঠক রেজাউল করিম রাজুর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মরমী কবি হাছন রাজার প্রপৌত্র দেওয়ান সাখাতুল সামারিন, ম্যানকাইন্ড ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান প্রবাসী খলিলুর রহমান। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মানিক মিয়া, মকলিছ মিয়া। অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ম্যানকাইন্ড কেয়ার হোমে কান্ট্রি ম্যানেজার আব্দুল্লাহ আল মামুন রেজা।

সভার শুরুতেই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরে নিজের বক্তব্যে ম্যানকাইন্ড ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান প্রবাসী খলিলুর রহমান বলেন, আমাদের তালিকায় উপজেলার আমতৈল গ্রামের ৪৯৫ জন, সত্তিশ গ্রামের ১৫০ জন ও সৎপুর গ্রামের ১০০ জন প্রতিবন্ধী রয়েছেন। তাদের জীবন যাপন, চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যসেবাসহ তাদেরকে সবধরনের সেবা এই প্রতিষ্ঠান থেকে দেওয়া হবে। প্রথমে আমাদের কেয়ার সেন্টারে এনে ৩ সপ্তাহ তাদের রেখে প্রাথমিক জীবন যাপননের সব কাজ শেখানো হবে। পরে তাদের বাড়িতে বাকি সেবা দেয়া হবে। পাশাপাশি তাদের চিকিৎসা সেবাও দেয়া হবে। এছাড়া অনেকের জন্যই নিরাপদ বাসস্থানের জন্য ঘর নির্মাণ ও ব্যবহারের জন্য দেয়া হচ্ছে সরঞ্জাম।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আলোচনা সভা শেষে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এসময় আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যাক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি ছাড়াও বিভিন্ন-শ্রেণী পেশার ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

আরো সংবাদ