বিশ্বনাথের প্রথম অনলাইন পত্রিকা

প্রতিটি শিশুই শেখ রাসেলের প্রতিচ্ছবি: সিলেট জেলা প্রশাসক

বিশ্বনাথনিউজ২৪ :: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৫তম জন্মদিন সিলেটে নানা কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে পালিত হয়েছে। শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সহযোগী সংগঠনসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে দিবসটি পালত করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে ছিলো আলোচনা সভা, শিশু কিশোর সমাবেশ, রক্তদান, গরীব দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ, শিশু-কিশোরদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, রচনা প্রতিযোগিতা, আবৃত্তি প্রতিযোগিতা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও দোয়া মাহফিল ইত্যাদি।

শেখ রাসেল প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র (বালক) : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৫তম জন্মদিন উপলক্ষে সিলেট সদর উপজেলার খাদিম নগরস্থ শেখ রাসেল প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র (বালক) এর উদ্যোগে শুক্রবার সকালে আলোচনা সভা এবং শিশুদের জন্য বিভিন্ন প্রতিযোগিতা,কেক কাটা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। বিষয় ভিত্তিক প্রতিযোগিতা ছিল-নৃত্য,চিত্রাঙ্কন,কবিতা আবৃত্তি ও সব শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। পরে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

উপ প্রকল্প পরিচালক মো. নূরে আলম সিদ্দিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন-সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল হক।বিশেষ অতিথি ছিলেন- অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আসলাম উদ্দিন, সিলেট সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার কাজী মহুয়া মমতাজ,সিলেট জেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ের উপ পরিচালক নিবাস রঞ্জন দাশ,জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক নাজিম উদ্দিন,সিনিয়র সাংবাদিক এম আহমদ আলী,সামাজিক প্রতিবন্ধী সেবা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক লুৎফুর রহমান । চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান লাভ করে শেখ রাসেল প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র (বালক) এর শিক্ষার্থী রোহান,দ্বিতীয় জায়েদ মিয়া,তৃতীয় হাবিবুর রহমান। কবিতা আবৃত্তিতে প্রথম স্থান লাভ করে আমিনুল ইসলাম, দ্বিতীয় জায়েদ মিয়া, তৃতীয় আলী হোসেন।

প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল হক বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুরের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলকে হত্যা মানব সভ্যতার ইতিহাসের এক জঘন্য অপরাধ। আমাদের প্রতিটি শিশুই শেখ রাসেলের প্রতিচ্ছবি। তাদের যথাযথ ভাবে গড়ে তুলতে হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তুলতে সোনার মানুষ দরকার। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট ভাই শেখ রাসেল ১৯৬৪ সালের এই দিনে ধানমন্ডির ঐতিহাসিক স্মৃতি-বিজড়িত বঙ্গবন্ধু ভবনে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট মানবতার শত্রু ঘৃণ্য ঘাতকদের নির্মম বুলেট থেকে রক্ষা পাননি শিশু শেখ রাসেলও। সপরিবারে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে নরপিশাচরা নির্মমভাবে তাকেও হত্যা করেছিল। তিনি ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুলের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিলেন। তিনি বঙ্গবন্ধুসহ নিহত তাঁর পরিবারের সদস্যবৃন্দ এবং শিশু শেখ রাসেলের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন। পরে দোয়া পরিচালনা করেন- ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট কো অর্ডিনেটর রিয়াদ আহমেদ চৌধুরী।

শেখ রাসেল প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র (বালিকা) : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেলের ৫৫তম জন্মদিন উপলক্ষে নগরীর শিবগঞ্জস্থ শেখ রাসেল প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র (বালক) উদ্যোগে শুক্রবার বিকেলে আলোচনা সভা এবং শিশুদের জন্য বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। বিষয় ভিত্তিক প্রতিযোগিতা ছিল-নৃত্য, চিত্রাঙ্কন, কবিতা আবৃত্তি। পরে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ ও জন্মদিনের কেক কাটা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

উপ প্রকল্প পরিচালক মো. নূরে আলম সিদ্দিকের সভাপতিত্বে এবং ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট কো অর্ডিনেটর রিয়াদ আহমেদ চৌধুরী ও যুবায়েরুল হক মৃধার পরিচালনায় শুরুতে শেখ রাসেলের জন্ম দিনের কেক কেটে প্রধান অতিথি হিসেবে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন সিলেট জেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ের উপ পরিচালক নিবাস রঞ্জন দাশ । বিশেষ অতিথি ছিলেন- জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক নাজিম উদ্দিন, দৈনিক সিলেটের ডাক এর সিনিয়র রিপোর্টার এম আহমদ আলী। বক্তব্য রাখেন- কেন্দ্রের এডুকেটর যুবায়েরুল হক মৃধা, শাহ আলম খাইরুন ইসলাম,কেস ম্যানেজার সাব্বির হোসেন,সাইকোলজিস্ট শামসুন নাহার রোজী, সোস্যাল ওয়ার্কার শিরিন আক্তার, লাইফ স্কিল্ড ট্রেনার কাম জব প্লেসমেন্ট অফিসার জহুরুল হক,ফিজিক্যাল ইন্সপেক্টর দ্বীপক চন্দ্র দাস,জয়ন্ত চক্রবর্তী, প্যারামেডিকস অফিসার রেজওয়ান আহমেদ চৌধুরী,অডিট রিচ ওয়ার্কার রাবিয়া আক্তার, মাসুমা আক্তার প্রমুখ।

উল্লেখ্য শেখ রাসেল প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র কর্মসূচিটি ২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে সমন্বিত ঝুঁকি নিরসন সেবা কেন্দ্র হিসেবে কাজ করছে। ২০১২ সালের ডিসেম্বর থেকে বালক বালিকা সেন্টার উদ্বোধন করা হয়। অনুমোদিত নিবাসী সংখ্যা বালক ১শ জন ও বালিকা ১শ জন। সেন্টারে এযাবৎ নিবন্ধিত শিশু ৭৮ জন বালক, ৬৬৫ জন বালিকা। সেন্টারের মাধ্যমে এযাবৎ পুন:একীকরণকৃত শিশু ২ জন বালক, ৫৩৯ জন বালিকা। বর্তমানে নিবাসী শিশুর সংখ্যা ৭৬ জন (বালক) এবং ৮৯ জন (বালিকা)। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি অনুমোদিত ৩৫টি পদের মধ্যে ২০টি পদের জনবল নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। ১৫টি শুন্য পদ রয়েছে।বলে সংশ্লিষ্ট সুত্র জানায়। নির্যাতিত, পথ শিশু, এতিম, প্রতিবন্ধী, গৃহকর্মী, শিশু শ্রমিক, স্নেহ বঞ্চিত, দুর্ঘটনায় শিকার, অবহেলিত শিশুরা শেখ রাসেল প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়।


Endofcontent
You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!