বিশ্বনাথের প্রথম অনলাইন পত্রিকা

অবশেষে দেশে আসলো ফরিদের লাশ : দাফন হবে ময়না তদন্ত শেষে

নিজস্ব প্রতিবেদক :: ইউক্রেন থেকে ফ্রান্স যাওয়ার পথে স্লোভাকিয়ায় নিহত সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার কারিকোনা গ্রামের সমশাদ আলীর পুত্র ও ইস্টান ব্যাংক বিশ্বনাথ শাখার সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা ফরিদ উদ্দিন আহমদ (৩৫) এর লাশ অবশেষে দেশে আনা হয়েছে। বিমানের একটি ফ্লাইটে আজ বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) সকাল ১০টায় সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে নিহতের মরদেহ পৌছে। বিমান বন্দরে লাশ রিসিভ করে নিহততের স্বজনরা। এরপর বিমান বন্দর থেকে লাশ নিয়ে যাওয়া হয়েছে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে। সেখানে সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্ত করা হবে। এরপর বিশ্বনাথে উপজেলার কারিকোনা গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হবে মরদেহ এবং জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হবে। তবে জানাযার নামাজের সময় এখনো নির্ধারণ করা হয়নি।

বিমান বন্দরে লাশ গ্রহনকালে উপস্থিত ছিলেন- জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সংসদ সদস‌্য আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডাঃ শামসুল ইসলাম, নিহতের ছোট ভাই কাওছার আহমদ (যুক্তরাজ‌্য প্রবাসী), আলা উদ্দিন ও গিয়াস উদ্দিন সহ নিহতের স্বজনরা।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত ফুটবল বিশ্বকাপ দেখতে রাশিয়া যান ফরিদ উদ্দিন আহমেদ। খেলা শেষ হওয়ার মাস খানেক পর তিনি রাশিয়া থেকে ইউক্রেন যান এবং সেখান থেকে গত ২৮ আগস্ট দালালের মাধ্যমে ৫জন সঙ্গীর সাথে ইউক্রেন থেকে ফ্রান্সের উদ্দেশ্যে পায়ে হেঁটে যাত্রা করেন ফরিদ। এরপর ২ সেপ্টেম্বর ফরিদের সঙ্গীরা ফ্রান্স পৌঁছলেও নিখোঁজ হয়ে যান ফরিদ। পরিবারের পক্ষ থেকে দালাল ও সঙ্গীদের সাথে যোগাযোগ করা হলে পরিবারের সাথে তারা নানান তালবাহানা করতে থাকে। একপর্যায়ে গত ৯ সেপ্টেম্বর স্লোভাকিয়ার স্টারিনার দূর্গম পাহাড়ি এলাকা এলাকার একটি পর্যটন স্পট থেকে ফরিদের মরহেদ উদ্ধার করে সেদেশের পুলিশ। ওই দিন অজ্ঞাতনামা যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে বলে ‘জওজে টিভি’র বরাত দিয়ে সেদেশের ‘নোভেনী ডট এসকে’ নামের একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল সংবাদটি প্রচার করে। ফরিদের স্বাজনরা যুক্তরাজ্য থেকে স্লোভাকিয়ায় গিয়ে সেদেশের একটি মর্গে ফরিদ উদ্দিন আহমদের লাশ সনাক্ত করেন। এরপর লাশ দেশে নিয়ে আসতে তারা অনেক প্রচেষ্টা চালিয়ে যান। ফরিদের মরদেহ দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন এমপির কাছে ছুটে যান সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরী। একপর্যায়ে লাশ বাংলাদেশে নিয়ে আসতে আন্তর্জাতিক একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি করেন ফরিদের স্বজনরা। দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর ওই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে অবশেষে স্লোভাকিয়া থেকে বৃটেন হয়ে বাংলাদেশে নিয়ে আসা হয় ফরিদ উদ্দিন আহমদের লাশ। লাশের সঙ্গে যুক্তরাজ‌্য থেকে দেশে আসেন নিহতের চাচা আলকাছ আলী (আওলাদ)।


Endofcontent
You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!