শেষ হাসি কে হাসবেন, হিলারি না ট্রাম্প?

বিশ্বনাথ নিউজ ২৪ ডট কম :: নভেম্বর - ৮ - ২০১৬ | ১০: ২৩ অপরাহ্ণ | সংবাদটি 642 বার পঠিত

0700-660x390রায়হান আহমেদ তপাদার :: উদ্বেগ,উৎকণ্ঠা,সংশয় এখন কাজ করছে আমেরিকানসহ বিশ্ববাসীর মনে।শেষ হাসিটি কে হাসবেন? কিংবা আগামী চার বছরের জন্য হোয়াইট হাউস কাকে বরণ করে নেবে?-বলতে গেলে সারা বিশ্ব এ নিয়ে এক ধরনের উৎকণ্ঠায়।বাংলাদেশও এর বাইরে নয়।দলগত অবস্থান থেকে হিলারি সুবিধাজনক অবস্থানে আছেন।ডেমোক্রেট রা হোয়াইট হাউস,কংগ্রেস ও সিনেট দখলে নিলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না।যদিও বার্নি স্যান্ডার্স সমর্থকরা শেষ পর্যন্ত কি করেন সেটাও দেখার বিষয়।এদিকে হিলারি ক্লিনটন যখন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন তখন লিবিয়ার বেনগাজিতে জঙ্গি হামলায় ৪ জন আমেরিকান নিহত হয়েছিলেন,এদের মধ্যে দু’জন সৈন্য।নিহত ওই দুই সেনা সদস্যের পরিবার হিলারির বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তারা হিলারির ব্যক্তিগত ই-মেইল ব্যবহারকে এজন্য দায়ী করেন।এছাড়া ক্লিনটন ফাউন্ডেশনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্ত শুরু হয়েছে।তদুপরি এফবিআই তাদের সঙ্গে হিলারির কথোপকথনের নোট সোমবার ১৬ আগস্ট কংগ্রেসের কাছে হস্তান্তর করেছে।ক্লিনটন ফাউন্ডেশন নিয়ে বিতর্ক ঘনীভূত হচ্ছে।বিল ক্লিন্টন ফাউন্ডেশনের বোর্ড থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন।হিলারি প্রেসিডেন্ট হলে ফাউন্ডেশন আর বিদেশি ডোনেশন নেবে না বলেও জানিয়েছে।কেউ কেউ এও ভাবছেন, নির্বাচনের আগে হিলারি ‘বেনগাজি’বা প্রাইভেট ই-মেইল সার্ভার’ ইস্যুতে আরো বড় সমস্যায় পড়তে যাচ্ছেন।তিনি বলেছেন-প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে মেক্সিকোর নাগরিক দের বে-আইনীভাবে আমেরিকা প্রবেশ বন্ধ করার জন্য সীমান্ত বরাবর প্রাচীর নির্মাণ করবেন, যার খরচ আদায় করা হবে মেক্সিকো সরকারের কাছ থেকে।এর চেয়েও চাঞ্চল্য সৃষ্টিকারী ঘোষণা হলো মুসলমানদের আমেরিকা প্রবেশ নিষিদ্ধ করা।মুসলমা নরা সন্ত্রাসী এবং আমেরিকায় হত্যাকাণ্ডে লিপ্ত এই যুক্তিতে তিনি তাদের আমেরিকায় আসা বন্ধ করতে চান।

নির্বাচনী প্রচারের চাপে একরকম অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের অধিকাংশ মানুষ।মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন,নির্বাচন এলে মানুষ এমনিতেই কিছুটা চাপের মধ্যে পড়ে।তবে এবারের মতো এত চরম অবস্থা আগে কখনও দেখা যায়নি।তাছাড়া নির্বাচনী প্রচার ছিল খুবই নেতিবাচক।প্রতিদ্বন্দ্বীরা একে অন্যকে দুষছেন।মিথ্যাচা রের অভিযোগ তুলছেন।নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ পর্যন্ত উঠেছে।এসব কিছু মিলে মানুষের মনে এক নৈরাজ্য তৈরি হয়েছে।এমনকি অনেকে এই নির্বাচনী প্রচারের অত্যাচার এড়াতে কানাডায় চলে গেছেন।প্রার্থীরা একে অপরের ব্যক্তি ও পারিবারিক জীবন নিয়ে অকথ্য ভাষায় আক্রমণ,ব্যক্তি চরিত্র নিয়ে চূড়ান্ত টানাহেঁচড়া,লাগামহী ন নোংরামি,নির্লজ্জ আক্রমণ,যৌন কেলেঙ্কারি আর অশালীনতার ছড়াছড়ি সব মিলিয়ে এবারের নির্বাচন মার্কিন নির্বাচনের ইতিহাসেই সবচেয়ে নোংরা অধ্যায়ের জন্ম দিয়েছে।মার্কিন নাগরিকরা এমন পরিবেশে অভ্যস্ত নয়। লাগাতার নির্বাচনী প্রচারের অশালীনতায় বলতে গেলে তাদের কর্ণকুহর প্রায়ই আক্রান্ত।এ পরিবেশ তাদের কাছে নেহাতই অসহনীয় হয়ে উঠেছিল,তারা চূড়ান্ত বিরক্ত ও ক্লান্ত বলে মত প্রকাশও করেছে।কাল মঙ্গলবার ভোটদান পর্ব শেষ হয়ে গেলে হাঁফ ছেড়ে বাঁচবেন, এমন ধারণা অনেকের।তবে নির্বাচনী ফলাফল ঘোষিত হওয়ার পর পরিস্থিতি কি দাঁড়াবে,তা এখন স্পষ্ট নয়।যদিও এবারের নির্বাচন ভোটারদের কাছে নেহাতই একটি খারাপ রাজনীতির রিয়েলিটি শোতে পরিণত হয়েছে।দুই প্রার্থী কোন ইস্যুতে কী বলেছেন, তা অনেকেই জানতে পারেনি। কেননা,প্রার্থীরা একে অপরকে কেবল অশালীন আক্রমণ করেই গেছেন।অবশ্য এবারের নির্বাচন বিশেষ দুটি কারণে বলে মত প্রকাশ করেছেন অনেকে।প্রথম কারণটি হচ্ছে,নির্বাচনী প্রচারের ভব্যতা-সভ্যতার অভাব। দ্বিতীয়ত.দুই প্রার্থীর মধ্যে পার্থক্য।

একদিকে ক্ষমতা কাঠামোর বিরোধী ব্যবসায়ী রিপাবলি কান দলের প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প,অন্যদিকে মার্জিত ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন।যিনি ওবামা প্রশাসনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন প্রথম দফায়।এবারের নির্বাচনী প্রচারে মার্কিন সমাজের এক গভীর ত্রুটি বেরিয়ে আসছে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মত প্রকাশ করেছেন।এতে দেশটির বৈশ্বিক সুনাম ক্ষুণœ হয়েছে।এটা বাস্তব যে,মার্কিন রাজনীতি ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান শিবিরেই বিভক্ত।তবে এই দুই দলের অভ্যন্তরীণ বিভাজন ও দ্বিদলীয় বিবাদের মতোই গভীর।যে কারণে রিপাবলি কান পার্টির অনেকেই ট্রাম্পের প্রতি তাদের সমর্থন প্রত্যাহার শুধু নয়,ট্রাম্প যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট হওয়ার যোগ্য নন,সে কথা বলতেও তারা ছাড়েননি।নিজেকে শ্রেষ্ঠ ভাবা মার্কিনীদের মজ্জাগত অভ্যাস।কিন্তু নির্বাচনী প্রচার সেই শ্রেষ্ঠত্বকে ম্লান করে দিয়েছে বলা যায়।ট্রাম্পের ভাষা মার্জিত নয় কোনভাবেই জনগণের সামনেই তিনি অবলীলায় বলেছেনও হিলারির চেহারা তার পছন্দ হয়নি।হিলারি মোহিত করতে পারেননি তাকে।ট্রাম্পের মুখ বরাবরই বাচালতায় পূর্ণ।তার বিরুদ্ধে কমপক্ষে পনেরো জন নারী যৌন হয়রানির অভিযোগ এনেছেন।হিলারি মন্তব্য করেছিলেন যে,মহিলাদের যৌন হেনস্থা এবং তাদের ধারাবাহিকভাবে অসম্মান করাটা ট্রাম্পের ত্রিশ বছরের ঐতিহ্য।ট্রাম্পের একটার পর একটা বিতর্কে ভয়ঙ্কর খারাপ পারফরমেন্স নিম্নরুচির কথাবার্তা কর-ফাঁকির ঢাক পেটানো,হেরে গেলে নির্বাচনের ফলাফল মেনে না নেয়ার মতো মূর্খ হুমকি,টুইটারে এক নাগাড়ে অপমানজনক উক্তি,যৌন অপরাধের লাগাতার অভিাযোগ সব মিলিয়ে বিশ্ববাসীকেও বিস্মিত করেছে।আর এসব ভোটে তার হেরে যাওয়ার ক্ষেত্র তৈরি করতে পারে।কাদা ছোড়াছুড়ি তেই ঠিক হতে যাচ্ছে হোয়াইট হাউসের ভবিষ্যত।

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যেসব জরিপ চালানো হচ্ছে, তাতে একজন উপরে ওঠে তো, অপরজন নিচে নামে।সর্বশেষ তো দেখা যাচ্ছে,সমানে সমান।অবশ্য জরিপের ফল সবসময় মেলে না।যেমন যুক্তরাজ্যের ব্রেক্সিট নিয়ে জরিপ উল্টো হয়েছে।জরিপ যা-ই হোক,কালই নির্ধারিত হয়ে যাবে।সারাবিশ্ব এই নির্বাচনের ফলাফলের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ রাখবেই।বাংলাদেশও সজাগ।সে দেশে বিপুল সংখ্যক বাংলাদেশী অভিবাসী রয়েছে।অনেকে নাগরিকত্বও পেয়েছে।দ্বিতীয়,তৃতীয় প্রজন্মও সে দেশে জন্মগতভাবে নাগরিক।বাংলাদেশী ভোটারও কম নয়। এবারের নির্বাচনে ধর্ম ও অভিবাসী নিয়ে তুমুল বিতর্ক চলছে।মার্কিন মুসলিমরা বিদ্বেষের শিকার হচ্ছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে মুসলিমদের একটি বড় অংশ হিলারির পক্ষে। আবার ট্রাম্প ভারতীয় ও হিন্দু ভোট পাবার জন্য হিন্দী ভাষায় সলোগান গান শুধু নয়,তিনি যে হিন্দু ভক্তÑ এ কথাও বলেছেন।সাম্প্রদায়িকতা এখনই উস্কে দেয়ার মতো অনৈতিক কাজ ভবিষ্যতে সমস্যা বাড়াবেই।

আমেরিকানরা এত শিক্ষিত আর এনলাইটেন্ড হোকনা কেন শারীরিক এবং অর্থনৈতিক নিরাপত্তার বিষয়ে খুব সচেতন।এ দুইটি বিঘ্নিত হবার সম্ভাবনা দেখলে তারা যত প্রতিক্রিয়াশীলই হোক অভয়দানকারী নেতার পেছনে দাঁড়াতে ইতস্তত করবে না।হিলারি ক্লিনটনের সামনে চ্যালেঞ্জ হলো-তিনি ট্রাম্প আমেরিকান ভোটারদের মধ্যে তাদের শারীরিক এবংঅর্থনৈতিক নিরাপত্তা বিষয়ে যে ভীতির সঞ্চার করছেন তা অসার ও অমূলক প্রমাণ করতে পারবেন কি না।বিশ্ব এখন থাকিয়ে আছে শুধু আমেরি কার দিকে;শেষ হাসি কে হাসছেন?

আরো সংবাদ

চাম্পারকান্দি মাদ্রাসায় প্রবাসী’র ৫০বস্তা সিমেন্ট প্রদান

বালাগঞ্জে দেওয়ান আব্দুর রহিম হাইস্কুলের ৭৭’ ব্যাচের পুনর্মিলন অনুষ্ঠিত

বিশ্বনাথের পশ্চিম শ্বাসরাম গ্রামে দুই ওলির বার্ষিক উরুস ২৫ জানুয়ারী

বিশ্বনাথের লামাকাজীতে নৌকা প্রতিকের নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধন

বিশ্বনাথে প্রয়াত হাজী তেরা মিয়া স্মরণে ফ্রি চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্প ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

নির্বাচিত হলে সম্মানী ভাতা এতিমদের মাঝে বন্টনের ঘোষণা দিলেন আরশ আলী গণি

খাজাঞ্চীতে নৌকা প্রতিকের নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধন

লামাকাজী-খাজাঞ্চী ইউপি নির্বাচনে ১২৭ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ

বিশ্বনাথে জাতীয় পার্টির শীতবস্ত্র বিতরণ

বিশ্বনাথে দশঘর ইউনিয়ন ক্রিকেট এসোসিয়েশনের কমিটি গঠন

বিশ্বনাথের ৮ ইউনিয়নে বিএনপির কমিটি গঠন

বিশ্বনাথে উপজেলা ও পৌর বিএনপির কমিটি গঠন

সর্বশেষ সংবাদ

চাম্পারকান্দি মাদ্রাসায় প্রবাসী’র ৫০বস্তা সিমেন্ট প্রদান

বালাগঞ্জে দেওয়ান আব্দুর রহিম হাইস্কুলের ৭৭’ ব্যাচের পুনর্মিলন অনুষ্ঠিত

বিশ্বনাথের পশ্চিম শ্বাসরাম গ্রামে দুই ওলির বার্ষিক উরুস ২৫ জানুয়ারী

বিশ্বনাথের লামাকাজীতে নৌকা প্রতিকের নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধন

বিশ্বনাথে প্রয়াত হাজী তেরা মিয়া স্মরণে ফ্রি চক্ষু চিকিৎসা ক্যাম্প ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

নির্বাচিত হলে সম্মানী ভাতা এতিমদের মাঝে বন্টনের ঘোষণা দিলেন আরশ আলী গণি

খাজাঞ্চীতে নৌকা প্রতিকের নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধন

লামাকাজী-খাজাঞ্চী ইউপি নির্বাচনে ১২৭ প্রার্থীর মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ

বিশ্বনাথে জাতীয় পার্টির শীতবস্ত্র বিতরণ

বিশ্বনাথে দশঘর ইউনিয়ন ক্রিকেট এসোসিয়েশনের কমিটি গঠন

বিশ্বনাথের ৮ ইউনিয়নে বিএনপির কমিটি গঠন

বিশ্বনাথে উপজেলা ও পৌর বিএনপির কমিটি গঠন