জগন্নাথপুরে রথযাত্রায় দু’পক্ষের সংঘর্ষ: ওসি, সাংবাদিক, কাউন্সিলরসহ আহত ২৫

বিশ্বনাথ নিউজ ২৪ ডট কম :: জুলাই - ১০ - ২০১৬ | ৮: ২৯ অপরাহ্ণ | সংবাদটি 1226 বার পঠিত

jagannathpur pic---- 10-07-2016মো: আব্দুল হাই, জগন্নাথপুর থেকে :: জগন্নাথদেবের রথযাত্রা উৎসবকে কেন্দ্র করে ঈদের আগের দিন বুধবার জগন্নাথপুর পৌর শহরে পৃথক রথযাত্রা উৎসব আয়োজকদের দু-পক্ষের সংঘর্ষে ওসিসহ ২৫জন আহত হয়েছেন। সংঘর্ষে ঢিল ও লাটি সোটার আঘাতে আহতরা হলেন জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: মুরসালিন (৪৭), কনস্টেবল লায়েব আলী (৩৫), ৭নং ওয়ার্ডের পৌর কাউন্সিলর সুহেল আহমদ (৩৫), দৈনিক কাজির বাজার প্রতিনিধি শাহজাহান মিয়া (৩৫), জগন্নাথপুর নিউজ টুয়েন্টিফর ডটকমের স্টাফ রিপোর্টার বিপ্লব দেবনাথ (২৫), সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার জুইন্দা গ্রামের ভুষন দেবের পুত্র সন্তোষ দেব (৩৫), রথ যাত্রা উৎসব আয়োজক বাসুদেব নামহট্র সংঘের মধ্যে আহতরা হলেন ছাতক ইসকন নামহট্রের কোষাধ্যক্ষ দিবারাজ আচার্য্য (২৬), ইসকন সদস্য দুর্জয় আচার্য্য (৭), সার্বজনীন রথযাত্র উৎসব আয়োজকদের মধ্যে আহতরা হলেন দিবাকর পাল (৩৮), মিন্টু দেব (২৮), সৌরভ রায় (২৫), বাপন দেব (২৮), উজ্জল দেব (২৪)সহ অন্যান্য আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে প্রাথমিক চিকিতসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এদের মধ্যে দিবাকর পালের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে ঐ দিন সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার দুটি পা ভেঙ্গে যায়। এছাড়া জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মো: মুরসালিনের বাম হাতের কনুইর উপরসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ঢিলের আঘাতের ফলে রক্তাক্ত জখম প্রাপ্ত হন। সনাতন ধর্মালম্বী জগন্নাথ ও বাসুদেব বিগ্রহ নিয়ে আধিকাল থেকে চলে আসা সার্বজনীন রথযাত্রা উৎসবের প্রস্তুতি নেয়া হলে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক শ্রীকৃঞ্চ ভাবানামৃত সংঘ ইসকনের অঙ্গ সহযোগী সংগঠন বাসুদেব নামহট্র সংঘের উদ্যোগে মিন্টু রঞ্জন ধরের নেতৃত্বে রথযাত্রা উদযাপনের পৃথক প্রস্তুতি নেয়া হলে বিরোধের সৃষ্টি হয়। এনিয়ে সার্বজনীন রথযাত্রা উতসব আয়োজকদের বিভিন্ন সময়ে বৈঠক অনুষ্টিত হয়। এসব বৈঠকে পুরনো অতীত ঐতিহ্যের রথ বাড়িতে একটি রথ যাত্রা অনুষ্টান আয়োজনের জন্য পৃথক আয়োজনকারীদের আহবান জানানো হয়। এনিয়ে দু-পক্ষের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হলে উভয় পক্ষই স্থানীয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের দ্বারস্থ হন। অবশেষে গত ৩জুলাই অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান সরকারি সফরে জগন্নাথপুরে আসেন। উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে পরিষদ সম্মেলন কক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচী শেষে রথযাত্রা উতসব আয়োজনকারীদের বিবদমান দু-পক্ষকে নিয়ে বৈঠকে বসেন। বৈঠকে উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে প্রতিমন্ত্রী ধর্মীয় অনুষ্টান শান্তি শৃংখলা বজায় রেখে উদযাপনের জন্য আয়োজনকারীদের প্রতি আহবান জানিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের নির্দেশনায় সময়সীমার ভিত্তিতে পৃথক ভাবে দু-পক্ষ রথ যাত্রা উদযাপনের সিদ্ধান্ত দেন। এসময় আওয়ামীলীগের বর্ষীয়ান নেতা সিদ্দিক আহমদ, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আকমল হোসেন, ইউএনও মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির, অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: মুরসালিন এবং আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দসহ হিন্দু সম্প্রদায়ের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। রথ যাত্রা উতসব আয়োজনকারী বিবদমান দু-পক্ষই প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের দেয়া সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানান। এর পর থেকেই উতসব আয়োজকরা নতুন আঙ্গিকে তাদের রথ সাজানোর কাজে ব্যস্থ হয়ে উঠেন। এদিকে উতসবের আগের দিন ৫ জুলাই র্সাবজনীন রথ যাত্রা উতসব আয়োজনকারীরা প্রচার করতে থাকেন জগন্নাথপুরে একটি মাত্র রথ যাত্রা অনুষ্টিত হবে। অন্য কোন সংগঠন পৃথক রথযাত্রার আয়োজন করা হলে প্রতিহত করা হবে। এমন উড়ো সংবাদ পেয়ে পৃথক রথযাত্রা আয়োজনকারী বাসুদেব নামহট্র সংঘের সাথে সম্পৃক্ত ইসকন সদস্যদের মধ্যে আবারো ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। সন্ধ্যায় প্রথমে সার্বজনীন উতসব আয়োজনকারীরা জগন্নাথপুর থানায় উপস্থিত হয়ে অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুরসালিলেন সাথে বৈঠক করেন এবং পৃথক আয়োজনকারীদের উচ্ছৃংখল আচরনের বিষয়টি অবহিত করেন। পরবর্তীতে পৃথক আয়োজনকারী মিন্টু রঞ্জন ধরের নেতৃত্বে ইসকন নেতারা থানায় উপস্থিত হয়ে সার্বজনীন রথ যাত্রা উতসবকারীদের বিরুদ্ধে উচ্ছুংখল আচনের মৌখিক অভিযোগ করেন। ওসি মুরসালিন জানান, ঐদিন বিবদমান দু-পক্ষের মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে প্রশাসনের পূর্বেকার নেয়া সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে পৃথকভাবে রথ যাত্রা উদযাপন হবে। এক্ষেত্রে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে উতসব এলাকায় অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন থাকবে। উভয় পক্ষ পৃথকভাবে ওসির সাথে বৈঠক শেষে ঐদিন রাত ৮টায় পুনরায় উতসব আয়োজনকারী সদস্যদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এক পক্ষ জগন্নাথ জিউর আখড়া প্রাঙ্গনে এবং অপর পক্ষ শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে অবস্থান নেয়। খবর পেয়ে থানার উপ-পরিদর্শক সাইফুল আলমের নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ফোর্স উভয় স্থানে পৌছলে দু-পক্ষই তাদের অবস্থান ত্যাগ করে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। চোরাগুপ্তা হামলার আশংকায় রাতভর পৌর শহরে আতংক বিরাজ করলেও গভীর রাত পর্যন্ত পুলিশের কড়া টহল জোরদার থাকায় কোন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। রথযাত্রা উতসবের দিন ৬জুলাই সকাল থেকেই রথ বাড়ি ও বাসুদেব বাড়ি এলাকায় উতসব আয়োজনকারীদের মধ্যে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে এবং কোন বিশৃংখলা ছাড়াই রথ যাত্রা উতসব সম্পন্ন করনে সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) তাপস রঞ্জন ঘোষ ও জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: মুরসালিন এর নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ফোর্স উতসব এলাকায় টহল জোরদার করে। সকাল ১০টায় সার্বজনীন রথ যাত্রা আয়োজনকারীদের রথ নিয়ে বাসুদেব মন্দির থেকে বাসুদেব মুর্তি রথ কুঞ্জে বসিয়ে রথ বাড়ি এলাকায় নিয়ে আসা হয়। পরবর্তীতে জগন্নাথ জিউর আশ্রম থেকে জগন্নাথ মুর্তি রথ কুঞ্জে উঠিয়ে পুলিশী প্রহরায় আয়োজনকারীরা উতসব আনন্দে রথ দুটোকে টেনে শহরের গুরুত্বপূর্ব সড়ক প্রদক্ষিন শেষে হিন্দু ধর্মালম্বীদের ঐতিহ্যবাহি রথ বাড়ি এলাকায় ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী রথটিকে সাত টান দিয়ে উতসবে আসা হিন্দু ধর্মালম্বীরা উলু ধ্বনী দিয়ে উতসব অঙ্গনে আনন্দ উল্লাসে মেতে উঠেন। এদিকে পৃথক আয়োজনকারী বাসুদেব নামহট্র সংঘের রথটি সাজানোর কাজে ব্যস্ত থাকে। এ ফাঁকে বাসুদেববাড়ি এলাকার বাসিন্দা অমৃত লাল গোপের বাসার আঙ্গিনায় আয়োজন করা হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্টানের। দুপুর ২টা পর্যন্ত সিলেটের জনপ্রিয় শিল্পী শুকরিয়া দাস ধর্মীয় গানের পাশাপাশি বিভিন্ন গানে মাতিয়ে তুলেন উতসব এলাকা। এখানে জড়ো হওয়া নারী পুরুষ, শিশু-কিশোরদের উতফুল্ল মনে জগন্নাথ দেবের রথ যাত্রার উলু ধ্বনী আর গানের মুরছনায় মেতে উঠেন। ইসকন সদস্যদের আনা জগন্নাথ মুর্তি রথে উঠানোর পূর্বে ভক্তবৃন্দদের দেয়া হয় খিচুরী খাবার। পরে ব্যতিক্রমী আয়োজনে রথ টানার জন্য রশির এক পাশে পুরুষ ও একপাশে মহিলা অপরদিকে ঝাড়– নিয়ে এক ঝাক মহিলা জড়ো হয় রথের সামনে। বিকেল তথন সাড়ে ৩টা ইসকন নেতাদের সহায়তায় আয়োজকরা তাদের প্রানের ঠাকুর জগন্নাথ মুর্তি তুলেন রথ কুঞ্জে। প্রস্তুতি নেন রথ টেনে বাসুদেব বাড়ি হয়ে রথ বাড়ি প্রদর্শন করে শহরের গুরুত্বপূর্ন সড়ক প্রদক্ষিন করবে। এমন সংবাদ শুনে সার্বজনীন রথ যাত্রা আয়োজনকারীরা তাদের বাসুদেব ও জগন্নাথ বিগ্রহের রথ নিয়ে অবস্থান নেয় বাসুদেব বাড়ি এলাকার বড়দিঘীর পাড়ের দক্ষিন দিকে। আয়োজক উভয় পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে দেখা দেয় মৃদু উত্তেজনা। এসময় প্রশাসনের দেয়া পূর্বেকার সিদ্ধান্তের সময়সীমা অনুযায়ী রথ যাত্রার পৃথক আয়োজনকারীদের রথ যাত্রার প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি না করতে সার্বজনীন উতসব আয়োজনকারী নেতাদের পুলিশ অনুরোধ করেন । বিকেল তখন ৪টা বাসুদেব বাড়ির বনিকপাড়ার বাসিন্দা অমৃত লাল গোপের বাড়ির সামন থেকে পৃথক আয়োজনকারী ইসকন সদস্যদের নিয়ে রথ টানা শুরু হয়। একদিকে উতসব অন্য দিকে উত্তেজনায় বিপুল সংখ্যক লোকজনের সমাগম ঘটে। রথ টেনে বড়দিঘীর পাড় পেড়িয়ে শহীদ মিনারের দিকে আসতে চাইলে পূর্ব থেকে অবস্থান নেয়া সার্বজনীন উতসব আয়োজনকারীদের মধ্যে মুখোমুখি হয়ে যায়। এসময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ উভয় পক্ষকে নিভৃত করার চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে দু-পক্ষ লাটি সোটা, লোহার রড ও ইট পাটকেল নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। দু-পক্ষই এলাপাতারী ঢিল ছুড়া ছুড়ি করতে থাকে। পুলিশ উভয় পক্ষকে নিভুত করতে আবারো চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়। এসময় উভয় পক্ষের ইট-পাটকেল ও লাটি সোটার আঘাতে ওসি, সাংবাদিক, পৌর কাউন্সিলর, ইসকন সদস্যসহ আয়োজনকারীদের উভয় পক্ষের কমপক্ষে ২৫জন আহত হয়। পুলিশ আহত হয়ে মারমূখী হলে দু-পক্ষের উচ্ছৃংখল সমর্থকরা পিছু হটলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে। পরে পৃথক আয়োজনকারীদের রথ নিয়ে পুলিশী প্রহরায় শহীদ মিনার হয়ে জগন্নাথপুর বাজারে পৌছে সম্পন্ন করা হয়। সংঘর্ষ চলাকালে পুরো এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। এসময় নারী ও শিশুরা আত্মরক্ষার্থে দিক বেদিক ছুটাছুটি করতে দেখা যায়। পৃথক আয়োজনকারীদের রথ টানায় মহিলা, তরুনী ও শিশুদের অংশ গ্রহন এবং রথের সামনে এক ঝাক তরুনীর ঝাড়– দিয়ে রাস্তা পরিস্কার করার দৃশ্যে হিন্দু ধর্মালম্বী অনেকেই এ প্রতিনিধিকে হতবাক দৃশ্যের বর্ণনা দিয়েছেন। এদিকে ঘটনার পর থেকে পৌর শহরে হিন্দু ধর্মালম্বীদের মধ্যে টান টান উত্তেজনা বিরাজ করতে থাকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে ঐদিন রাতভর অতিরিক্ত পুলিশী টহল জোরদার করা হয়। রথ যাত্রা আয়োজনকারীদের হামলায় পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় এস আই অনির্বান বিশ্বাস বাদি হয়ে সার্বজনীন রথ যাত্রা উতসব আয়োজনকারীদের মধ্যে বাড়ি জগন্নাথপুর এলাকার জগদীশ সুত্রধরের পুত্র উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জয়দ্বীপ সুত্রধর বীরেন্দ্র (৪০), আবু দেবের পুত্র উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি বিভাষ দে (৩৮), বাড়ি জগন্নাথপুর এলাকার মতিলাল দেবের পুত্র মিন্টু দেব (২৮), কাঞ্চন দেবের পুত্র পাপন দেব (২৮), মিন্টু দের পুত্র মৃদুল দে (৩০), ও বাসুদেব নামহট্র সংঘের আয়োজনকারীদের মধ্যে জগন্নাথপুর বাসুদেব বাড়ি এলাকার বাসিন্দা মৃত মিহির রঞ্জন ধরের পুত্র উপজেলা আওয়ামীলীগের শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক মিন্টু রঞ্জর ধর (৪৫), জগন্নাথপুর বাসুদেব বাড়ি এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী অমৃত লাল গোপের পুত্র অনন্ত গোপ (৩৭) সহ অজ্ঞাতনামা ১শ ২০জনের বিরুদ্ধে পুলিশ অ্যসল্ট মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীরা আত্মগোপনে রয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই অভিজিত সিংহের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি পরে কথা বলবেন বলে ফোনটি রেখে দেন। ফলে মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানা সম্ভব হয়নি। জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: মুরসালিনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, পুলিশ অ্যসল্ট মামলায় অভিযুক্ত আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। jagannathpur pictur----- 10-07-2016

আরো সংবাদ

বিশ্বনাথে অজ্ঞাতনামা নারীকে গণধর্ষণ ও হত্যা মামলায় সেই তবারক গ্রেফতার

বিশ্বনাথ এইট ইউকে’র অর্থায়নে গোস্ত, নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

সিলেট চেম্বারস অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ’র পক্ষ থেকে বিশ্বনাথে মাস্ক বিতরণ

যেভাবে ড্রাইভিং ছেড়ে ভূয়া সাংবাদিকতার পথ বেছে নেয় আনোয়ার

সিলেটে আরো ১১ মৃত্যুর দিনে শনাক্ত ৩৩৯

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ হতে বিশ্বনাথে ২ শতাধিক পরিবারের মধ্যে অর্থ বিতরণ

করোনার সময়েও দেশের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড থেমে নেই -শফিক চৌধুরী

লাইভে অপপ্রচার, বিশ্বনাথে ভূয়া সাংবাদিকের বিরুদ্ধে জিডি

‘মনে তোমার অনেক রঙ’ ও ‘আমার শাস্থি চাই’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

বিশ্বনাথ পৌর শহরে দিনদুপুরে দুটি বাসায় দুর্ধর্ষ চুরি

বিশ্বনাথে ২৩ বোতল মদসহ মাদক কারবারি আটক

অনন্য প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন বিশ্বনাথের ‘রাজ-রাজেশ্বরী মন্দির’

সর্বশেষ সংবাদ

বিশ্বনাথে অজ্ঞাতনামা নারীকে গণধর্ষণ ও হত্যা মামলায় সেই তবারক গ্রেফতার

বিশ্বনাথ এইট ইউকে’র অর্থায়নে গোস্ত, নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

সিলেট চেম্বারস অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ’র পক্ষ থেকে বিশ্বনাথে মাস্ক বিতরণ

যেভাবে ড্রাইভিং ছেড়ে ভূয়া সাংবাদিকতার পথ বেছে নেয় আনোয়ার

সিলেটে আরো ১১ মৃত্যুর দিনে শনাক্ত ৩৩৯

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ হতে বিশ্বনাথে ২ শতাধিক পরিবারের মধ্যে অর্থ বিতরণ

করোনার সময়েও দেশের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড থেমে নেই -শফিক চৌধুরী

লাইভে অপপ্রচার, বিশ্বনাথে ভূয়া সাংবাদিকের বিরুদ্ধে জিডি

‘মনে তোমার অনেক রঙ’ ও ‘আমার শাস্থি চাই’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

বিশ্বনাথ পৌর শহরে দিনদুপুরে দুটি বাসায় দুর্ধর্ষ চুরি

বিশ্বনাথে ২৩ বোতল মদসহ মাদক কারবারি আটক

অনন্য প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন বিশ্বনাথের ‘রাজ-রাজেশ্বরী মন্দির’