বিশ্বনাথের রাজনীতিতে লেগেই আছে শনির দশা

বিশ্বনাথ নিউজ ২৪ ডট কম :: জানুয়ারি - ১০ - ২০১৬ | ১১: ১৯ পূর্বাহ্ণ | সংবাদটি 2269 বার পঠিত

111রফিকুল ইসলাম জুবায়ের :: জাতীয় রাজনীতিতে ঐতিহ্যবাহী বিশ্বনাথ উপজেলা সব সময়ই এক আলোচিত জনপদ। বাংলাদেশের ছাত্র রাজনীতির কিংবদন্তি সাবেক ছাত্রনেতা ও প্রাক্তন এমপি এম. ইলিয়াস আলীর জন্মস্থান হওয়ায়, এবং গত প্রায় দুই দশক ধরে সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে বিশ্বনাথের নেতৃত্বের গুণাবলীর কারণে একটা প্রভাব সৃষ্টি হওয়ায় এর পাশাপাশি কেবল গত দুই দশকে রাজনীতির নির্মমবলীর শিকার হয়ে ৮টি সম্ভাবনাময় তাজা প্রাণ অকালে ঝরে যাওয়ায় প্রবাসী অধ্যুষিত বিশ্বনাথ জাতীয় রাজনীতিতে ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়। রাজনীতির কারণে ৮টি তাজা প্রাণ ঝরে যাওয়ার পরও কোন রকম বোধদয় ঘঠেনি স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের। বরং এক দলের সাথে অন্য দলের বিরোধ থাকার পাশাপাশি নতুন করে যুক্ত হয়েছে আভ্যন্তরীণ রেষারেষি। সাম্প্রতিক সময়ে এটা সরকারী দল আওয়ামীলীগে যেমন প্রকট আকার ধারনা করেছে , ঠিক তেমনী বিএনপিতে ব্যাপকভাবে ঝেকে বসেছে।

প্রবাসী অধ্যুষিত বিশ্বনাথ উপজেলা স্বাধীনতার পর থেকেই অর্থনৈতিক ভাবে অনেকটা সমৃদ্ব। যে কারণে এখানকার অধিকাংশ রাজনীতিবিদকে রাজনীতি করে সংসার চালাতে হয় না । বরং রাজনীতির জন্য নিজেরাই দুহাত খুলে অর্থ ব্যয় করেন । আর এ কারণে তাদের অনেকেরই ভাবটা এমন – নিজের টাকায় রাজনীতি করি , পরের কথা শুনব কেন? সিলেট জেলায় আওয়ামীলীগ, বিএনপি এবং জাতীয় পার্টিকে বিশ্বনাথের রাজনীতিবিদরা যোগ্যতার কারণে নেতৃত্ব দিলেও স্থানীয় রাজনীতিতে এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে এখানে সৌহার্দপূর্ণ রাজনৈতিক সংস্কৃতি চালু হয়নি বললে চলে। যে কারণে গত ২০ বছরে দেখা গেছে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আওয়ামীলীগের সংসদ সদস্য শাহ আজিজুর রহমান ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা এম ইলিয়াস আলীর রাজনৈতিক দ্বন্দ, পরবর্তীতে ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপির সংসদ সদস্য এম ইলিয়াস আলী ও আওয়ামীলীগ নেতা সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমানের দ্বন্দ, এরপর ২০০৮ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত আওয়ামীলীগের সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী ও বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য এম ইলিয়াস আলীর দ্বন্দ। তারপর ২০০৮ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত আওয়ামীলীগের সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরী ও সংসদ সদস্য পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বঞ্চিত ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমানের আভ্যন্তরীণ দ্বন্দ, এরপর কিছু পর অর্থাৎ ২০১৪ সাল থেকে অদ্যাবধি চলছে বর্তমান জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য ইয়াহহিয়া চৌধুরী ও আওয়ামীলীগের সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুর রহমান চৌধুরীর মধ্যে ক্ষমতার দ্বন্দ । এই সমস্ত রাজনৈতিক বিরোধ ছিল উল্লেখ করার মত। হরহামেশা উপরোক্ত নেতাদের মধ্যে পাল্টাপাল্টি বিবৃতি, বিভিন্ন কর্মসূচি ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া , সংঘাত ও সহিংসতা মারাত্মক আকার ধারন করে। যে কারণে বিশ্বনাথের পরিস্থিতি প্রায় সময় উত্তপ্ত ও টানটান উত্তেজনা পূর্ণ থাকত। সাম্প্রতিক সময়ে বর্তমান সংসদ সদস্য ইয়াহহিয়া চৌধুরী ও বিএনপির উপজেলা চেয়ারম্যান সুহেল আহমদ চৌধুরীর মধ্যে প্রকাশ্যে কোন বিরোধ বা দ্বন্দ দেখা না গেলেও বিশ্বনাথের উন্নয়নের স্বার্থে নেই কোন সুসম্পর্ক । অন্যদিকে স্থানীয় রাজনীতিতে ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল সাবেক সংসদ সদস্য এম ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত বিএনপিতে সামান্যতম কোনরুপ বিরোধ ছিল না । কিন্তু ইলিয়াস আলী নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে স্থানীয় বিএনপিতে আভ্যন্তরীণ বিরোধ মারাত্মক আকার ধারন করেছে। দীর্ঘদিন জালাল-গৌছ ও লিলু-আব্দুল হাই দ্বন্দের পর এখন বিএনপির চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের মধ্যে আভ্যন্তরীণ দ্বন্দ জঠিল আকার ধারন করেছে । এই দুগ্রুপের মধ্যে হামলার পর এখন মামলা চলছে।
অপরদিকে বিশ্বনাথ আওয়ামীলীগে আভ্যন্তরীণ বিরোধ নিয়মিত সংস্কৃতিতে রুপদান করে আসছে । তবে সম্প্রতি কাউন্সিলের মাধ্যমে নতুন কমিটি ঘোষিত হলেও কেবলমাত্র আভ্যন্তরীণ বিরোধের কারণে এখন পর্যন্ত জেলার অনুমোদন পায়নি পংকি খান – বাবুল আখতার এর কমিটি । পর্দাল আড়াল থেকে বেরিয়ে এসে সিলেট ২ আসনে আগামীতে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী গতবার আওয়ামীলীগের মনোনয়ন বঞ্চিত মুহিবুর রহমান এবং বালাগঞ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোস্তাকুর রহমান মফুরকে নিয়ে পংকি খান-বাবুল আখতারের কাছে হেরে যাওয়া মজম্মিল আলী-ফখরুল আহমদ মতচিন-ফারুক আহমদ ও সাবেক উপজেলা আওয়ামীলীগের শক্তিশালী একটি গ্রুপকে হাতে নিয়ে বিশ্বনাথে গত সপ্তাহে বিশাল শোডাউন করলে আবারও স্থানীয় আওয়ামীলীগের বিরোধ এখন শফিকুর রহমান চৌধুরী ও আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর মধ্যে চলে যাচ্ছে । মোট কথা গত দুই দশক ধরে স্থানীয় রাজনীতিতে সুপার গ্লোর মত লেগেই আছে শনির দশা। এখনই দলে দলে ও বিভিন্ন দলে থাকা বিরোধ শক্ত হাতে দমন না করলে হয়তো আগামীতে বিধান, হরমুজ আলী, নুর আলম, আনু , মনোয়ার, সেলিম , জাকির এবং গোলাম রব্বানীর মৃত্যুর মিছিলে হয়ত যোগ দিতে হবে কোন সম্ভাবনাময় তরুনের। যে হয়ত ছিল গোলাম রবানীর মত বাবা-মার একমাত্র পুত্র সন্তান কিংবা জাকিরের মত পরিবারের একমাত্র উপার্জনশীল যুবক ।

আরো সংবাদ

বিশ্বনাথ এইট ইউকে’র অর্থায়নে গোস্ত, নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

সিলেট চেম্বারস অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ’র পক্ষ থেকে বিশ্বনাথে মাস্ক বিতরণ

যেভাবে ড্রাইভিং ছেড়ে ভূয়া সাংবাদিকতার পথ বেছে নেয় আনোয়ার

সিলেটে আরো ১১ মৃত্যুর দিনে শনাক্ত ৩৩৯

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ হতে বিশ্বনাথে ২ শতাধিক পরিবারের মধ্যে অর্থ বিতরণ

করোনার সময়েও দেশের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড থেমে নেই -শফিক চৌধুরী

লাইভে অপপ্রচার, বিশ্বনাথে ভূয়া সাংবাদিকের বিরুদ্ধে জিডি

‘মনে তোমার অনেক রঙ’ ও ‘আমার শাস্থি চাই’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

বিশ্বনাথ পৌর শহরে দিনদুপুরে দুটি বাসায় দুর্ধর্ষ চুরি

বিশ্বনাথে ২৩ বোতল মদসহ মাদক কারবারি আটক

অনন্য প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন বিশ্বনাথের ‘রাজ-রাজেশ্বরী মন্দির’

ব্রিটেনে তাহমিদের ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অর্জন

সর্বশেষ সংবাদ

বিশ্বনাথ এইট ইউকে’র অর্থায়নে গোস্ত, নগদ অর্থ ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

সিলেট চেম্বারস অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ’র পক্ষ থেকে বিশ্বনাথে মাস্ক বিতরণ

যেভাবে ড্রাইভিং ছেড়ে ভূয়া সাংবাদিকতার পথ বেছে নেয় আনোয়ার

সিলেটে আরো ১১ মৃত্যুর দিনে শনাক্ত ৩৩৯

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ হতে বিশ্বনাথে ২ শতাধিক পরিবারের মধ্যে অর্থ বিতরণ

করোনার সময়েও দেশের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড থেমে নেই -শফিক চৌধুরী

লাইভে অপপ্রচার, বিশ্বনাথে ভূয়া সাংবাদিকের বিরুদ্ধে জিডি

‘মনে তোমার অনেক রঙ’ ও ‘আমার শাস্থি চাই’ কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন

বিশ্বনাথ পৌর শহরে দিনদুপুরে দুটি বাসায় দুর্ধর্ষ চুরি

বিশ্বনাথে ২৩ বোতল মদসহ মাদক কারবারি আটক

অনন্য প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন বিশ্বনাথের ‘রাজ-রাজেশ্বরী মন্দির’

ব্রিটেনে তাহমিদের ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অর্জন