বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
বালাগঞ্জের বন্যার্ত শিশুদের জন্য ইউএনও’র ব্যতিক্রমী উপহার!  » «   বিশ্বনাথ থানার ৩ পুলিশ অফিসার পুরস্কৃত  » «   বিশ্বনাথে পুষ্টি সমন্বয় কমিটির সভা অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্বনাথে এইচএসসি’তে পাশের হার ৬৫.৪০% ও আলিমে ৯১.৫১%  » «   বিশ্বনাথ উপজেলা বিএনপির দোয়া ও মাহফিল অনুষ্ঠিত  » «   দৈনিক যায়যায়দিন’র বিশ্বনাথে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিশ্বনাথে র‌্যালী-সভা  » «   বিশ্বনাথের লামাকাজী ও খাজাঞ্চী ইউনিয়নে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ  » «   রংপুরের পল্লীনিবাসে​ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় এরশাদের দাফন সম্পন্ন  » «   টিকটক করতে সুরমা নদীতে ঝাঁপ দেয়া সেই তরুণের লাশ বিশ্বনাথ থেকে উদ্ধার  » «   বিশ্বনাথে মদিনাতুল উলুম মাদ্রাসা জামে মসজিদের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন  » «   বিশ্বনাথে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করলেন উপজেলা চেয়ারম‌্যান  » «   বিশ্বনাথে আশুগঞ্জ স্কুল এন্ড কলেজ’র গভর্ণিং বডি’র নির্বাচন সম্পন্ন  » «   বিশ্বনাথে আশুগঞ্জ আদর্শ স্কুল এন্ড কলেজের গর্ভনিং বডির নির্বাচনে ভোটগ্রহন চলছে  » «   ক্রিকেটের জনক ইংল্যান্ডের প্রথম বিশ্বকাপ জয়  » «   বিশ্বনাথের রাজাগঞ্জ বাজারে ব্যাংক এশিয়ার এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের উদ্বোধন  » «  

বিশ্বনাথে শখের বসে ‘মাল্টা’র চাষ করে সফল কৃষক ফখরুদ্দিন

বিশ্বনাথে নিজের চাষকৃত মাল্টা’র বাগানে কৃষক ফখরুদ্দিন। ছবি: নূর উদ্দিন

এমদাদুর রহমান মিলাদ :: সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার রামপাশায় শখের বসে ‘মাল্টা’র চাষ করে সফল্য দেখিয়েছেন কৃষক ফখরুদ্দিন (৬০)। ইতিমধ্যে ফলন আসতে শুরু করেছে। কৃষক ফখরুদ্দিন রামপাশা (কোনাপাড়া) গ্রামের মৃত বাদ উল্লাহর পুত্র। উপজেলা কৃষি অফিসের সহায়তায় রামপাশা গ্রামের পূর্বে খাজাঞ্চী নদীর তীরবর্তী নিজ জায়গায় এ ফলের বাগান করেন ফখরুদ্দিন। অল্প পরিশ্রম ও খরচে আবাদকৃত বারি মাল্টা-১ এর এ বাগানটি লাভজনক হবে বলে আশাবাদী ফখরুদ্দিন। গতকাল সোমবার সরেজমিনে মাল্টা বাগান পরিদর্শনে গেলে ফখরুদ্দিন জানান, প্রায় দেড় বছর পূর্বে কৃষি অফিসের তৎকালীন স্থানীয় মাঠ কর্মকর্তা জিয়া উদ্দিনের অনুপ্রেরণায় মাল্টার চাষ করতে আগ্রহী হন তিনি। এরপর উপজেলা কৃষি অফিসের উদ্যোগে রাজস্ব প্রকল্পের আওতায় প্রদর্শনীর জন্য বিনামূল্যে বারি মাল্টা-১ গাছের ৬০টি চারা পান ফখরুদ্দিন এবং কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শে তিনি ২১ শতক জায়গায় ওই চারাগুলো রোপণ করেন। ফখরুদ্দিন শুধু মাল্টা বাগানই নয়, তিনি উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় ২২ শতক জায়গায় হলুদও চাষ করেছেন। এ পর্যন্ত তার ব্যয় হয়েছে ১৫ থেকে ১৬ হাজার টাকা। প্রতিটি মাল্টা গাছে প্রায় দেড় মাস পূর্বে ফল ধরতে শুরু করে। বর্তমানে বাগানের প্রত্যেকটি গাছে ২০ থেকে ২৫ ফল এসেছে। ফলগুলো হলুদ রং ধারণ করতে শুরু করেছে। প্রাথমিক পর্যায়ে (প্রথম বছর) প্রতিটি গাছ থেকে ৪/৫ কেজি মাল্টা বিক্রয় করা যাবে। তবে পরবর্তী বছর থেকে গাছে আরো বেশি ফলন হবে বলে আশাবাদী ফখরুদ্দিন।
তিনি জানান, শখের বসে এই বাগান করে সফলতা লাভ করায় তিনি খুবই আনন্দিত। তাকে কৃষি বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ বাগান পরিদর্শন করে নিয়মিত পরামর্শ দিচ্ছেন। এছাড়া এলাকার বিভিন্ন লোক তার বাগানটি দেখে ‘মাল্টা’র বাগান করতে আগ্রহ প্রকাশ করছেন। কৃষি অফিসের সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে আগামীতে মাল্টা চাষ করে বাগানটি আরো সম্প্রসারিত করতে চান ফখরুদ্দিন। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রমজান আলী বিশ্বনাথ নিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম’কে বলেন, কৃষি অফিসের সহযোগিতায় মাল্টা চাষ প্রদর্শনী করে একজন সত্যিকারের কৃষক হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করেছেন ফখরুদ্দিন। শুধু ফখরুদ্দিনকেই নয়, কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে উপজেলার অনেক কৃষককেই প্রদর্শনীর জন্য মাল্টা’র চারা প্রদান করা হয়েছিল। কেউ এ ধরনের বাগান করতে চাইলে কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে তাকে পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করা হবে বলে জানান তিনি। কৃষক ফখরুদ্দিন ব্যক্তিগত জীবনে ৪ পুত্র ও ৬ কন্যা সন্তানের জনক। তার ২য় ছেলে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে অবস্থান করছেন ও ৪র্থ ছেলে মোটরসাইকেল মেরামতের স্থানীয় একটি দোকানে কর্মচারী এবং ১ম ও ৩য় ছেলেকে নিয়ে তিনি কৃষিকাজ করছেন।

am-accountancy-services-bbb-1

সর্বশেষ সংবাদ