শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
বিশ্বনাথে সাংবাদিকদের সাথে অশোভন আচরণের জন্য ইউএনও’র দুঃখ প্রকাশ  » «   বিশ্বনাথে প্রবাসীর কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় সাবেক চেয়ারম‌্যান আবারক গ্রেপ্তার  » «   বিশ্বনাথে নরশিংপুর সাজ্জাদুর রহমান সরকারি প্রাথমিক বিদ‌্যালয়ে সাধারণ সভা  » «   বালাগঞ্জে শিলাবৃষ্টিতে বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি  » «   বিশ্বনাথে সানশাইন মডেল একাডেমিতে পিঠা উৎসব ও প্রবাসীদের সংবর্ধনা  » «   বিশ্বনাথে নিরব ভাই ভাই স্পোটিং ক্লাবের ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন  » «   বিশ্বনাথ আ’লীগের সাংগঠনিক সুমনের পিতার দাফন সম্পন্ন  » «   সেবার অঙ্গীকার নিয়ে ৫ম বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের যাত্রা শুরু  » «   বিশ্বনাথ উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুমনের পিতার ইন্তেকাল  » «   বিশ্বনাথে গুণীজন সংবর্ধনা ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ  » «   লন্ডনী কন্যা সেজে শিউলির প্রতারণা  » «   মুজিবনগর দিবসে বিশ্বনাথে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভা  » «   অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিশ্বনাথের সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ  » «   বিশ্বনাথ প্রেসক্লাব থেকে অসিত রঞ্জন দেব বহিস্কার  » «   বিশ্বনাথে কালবৈশাখী ঝড়ে লন্ডভন্ড বাড়িঘর : ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি  » «  

মোকাব্বির খানকে দেখে ড. কামাল যা বললেন…..

বিশ্বনাথনিউজ২৪ :: গণফোরামের সভাপতিন্ডলীর সদস্য ও সিলেট-২ আসনের সাংসদ মোকাব্বির খান দলের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন। একাদশ জাতীয় সংসদের সদস্য হিসেবে শপথ নেওয়ার দু’দিন বাদে বৃহস্পতিবার বিকালে মতিঝিলে ড.কামালের চেম্বারে গিয়েছিলেন তিনি। মোকাব্বির খানকে দেখে কামাল হোসেন ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন এবং চেম্বার থেকে বেরিয়ে যেতে বলেন। এসময় ‘ধমক’ শুনে মোকাব্বির খান বেরিয়ে আসেন বলে জানান প্রতক্ষ্যদর্শীরা।
বিষয়টি নিয়ে বিশ্বনাথ নিউজ টুয়েন্টিফোর থেকে মোকাব্বির খানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ ধরনের কিছু হয়নি। মোকাব্বির খান বলেন, কামাল হোসেনের সঙ্গে তাঁর ৩৫ বছরের সম্পর্ক। এই সম্পর্ক শুধু রাজনৈতিক নয়, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক । ধমকের কোনো ঘটনা ঘটেনি।
বৃহস্পতিবার বেলা তিনটার পর মোকাব্বির খান মতিঝিলে কামাল হোসেনের চেম্বারে যান। এসময় ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে ছিলেন গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার কেন্দ্রীয় নেতা নুরুল হুদা মিলু চৌধুরী ও ঐক্যবদ্ধ ছাত্র সমাজের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ উল্লাহ মধু।
নিলু চৌধুরী সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘মোকাব্বির সাব কামাল স্যারের রুমের দরজা খুলে স্যারকে সালাম দেন। তখন স্যার বলেন, আপনি কার অনুমতি নিয়ে পত্রিকায় স্টেটমেন্ট দিয়েছেন যে গণফোরাম থেকে আপনাকে শপথ নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে? গণফোরাম সভাপতি আপনাকে অনুমতি দিয়েছে?’
মধু বলেন, ‘এ সময় মোকাব্বির খান চুপ করেছিলেন। স্যার রাগ হয়ে বলেছেন, আমি দ্বিতীয়বার আপনার চেহারা দেখতে চাই না। গেট আউট, গেট আউট। আপনার জন্য আমার দরজা চিরতরে বন্ধ। আমার বাসা চেম্বার কোথাও আসবেন না।’
এদিকে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, মোকাব্বির খানের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। তাঁর শপথের বিষয়ে কেন্দ্রীয় নেতারা অবগত ছিলেন না। তিনি ব্যক্তিগত ইচ্ছায় শপথ নিয়েছেন। মোকাব্বির খান মিডিয়াতে গণফোরাম সভাপতি, সংগঠন বিষয়ে অসত্য ও বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য প্রদান করেছেন। যা অসত্য, ভিত্তিহীন ও বানোয়াট। ২ এপ্রিল মঙ্গলবার দুপুরে মোকাব্বির খান শপথ নেন। তিনি এবার জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অধীনে নিজ দলের উদীয়মান সূর্য প্রতীকে সিলেট-২ আসন থেকে নির্বাচন করেন।
এবারের নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আটটি আসনে জয়লাভ করে। তার মধ্যে বিএনপি ছয়টি ও গণফোরাম দু’টি আসন পায়। গণফোরামের আরেক সদস্য সুলতান মোহাম্মদ মনসুর মৌলভীবাজার-২ আসন থেকে ধানের শীষ প্রতীকে লড়ে নির্বাচিত হন। গত ৭ মার্চ তিনি শপথ নেন। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে শপথ নেওয়ায় তাঁকে গণফোরাম থেকে বহিষ্কার করা হয়। ৭ মার্চ মোকাব্বির খানেরও শপথ নেওয়ার কথা ছিল। তবে তার আগের দিন তিনি সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন। তবে পরে তিনি শপথ নেন।

am-accountancy-services-bbb-1

সর্বশেষ সংবাদ