শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
বিশ্বনাথে সাংবাদিকদের সাথে অশোভন আচরণের জন্য ইউএনও’র দুঃখ প্রকাশ  » «   বিশ্বনাথে প্রবাসীর কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় সাবেক চেয়ারম‌্যান আবারক গ্রেপ্তার  » «   বিশ্বনাথে নরশিংপুর সাজ্জাদুর রহমান সরকারি প্রাথমিক বিদ‌্যালয়ে সাধারণ সভা  » «   বালাগঞ্জে শিলাবৃষ্টিতে বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি  » «   বিশ্বনাথে সানশাইন মডেল একাডেমিতে পিঠা উৎসব ও প্রবাসীদের সংবর্ধনা  » «   বিশ্বনাথে নিরব ভাই ভাই স্পোটিং ক্লাবের ফুটবল টুর্নামেন্ট সম্পন্ন  » «   বিশ্বনাথ আ’লীগের সাংগঠনিক সুমনের পিতার দাফন সম্পন্ন  » «   সেবার অঙ্গীকার নিয়ে ৫ম বালাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের যাত্রা শুরু  » «   বিশ্বনাথ উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুমনের পিতার ইন্তেকাল  » «   বিশ্বনাথে গুণীজন সংবর্ধনা ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ  » «   লন্ডনী কন্যা সেজে শিউলির প্রতারণা  » «   মুজিবনগর দিবসে বিশ্বনাথে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভা  » «   অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিশ্বনাথের সাংবাদিকরা ঐক্যবদ্ধ  » «   বিশ্বনাথ প্রেসক্লাব থেকে অসিত রঞ্জন দেব বহিস্কার  » «   বিশ্বনাথে কালবৈশাখী ঝড়ে লন্ডভন্ড বাড়িঘর : ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি  » «  

বিশ্বনাথে যে গ্রামের জনসংখ্যা মাত্র ৫ জন…

এমদাদুর রহমান মিলাদ :: সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নের একটি গ্রাম ‘শ্রীমুখ’। এই গ্রামের মোট জনসংখ্যা হলেন মাত্র ৫জন। এর মধ্যে রয়েছেন ১ জন পুরুষ, ৩ জন মহিলা ও ১টি শিশু। সরকারী গেজেটভূক্ত এই গ্রামে স্বাধীনতার পূর্ব থেকেই বসবাস করে আসছেন একটি মাত্র পরিবার।
জানা গেছে, খাজাঞ্চী ইউনিয়নরে ৫নং ওয়ার্ডের অর্ন্তগত তেলিকোনা ও পশ্চিম নোয়াগাঁও গ্রামের মধ্যবর্তি গ্রাম হচ্ছে ‘শ্রীমুখ’। এক সময়ে উক্ত গ্রামে (শ্রীমুখ) একটি হিন্দু পরিবার বসবাস করতেন। ১৯৬৪ সালে রায়টের সময় ওই হিন্দু পরিবার তাদের বাড়িটি বর্তমান বাসিন্দা আপ্তাব আলীর পূর্ব পুরুষের কাছে বিক্রি করে অন্যত্র চলে যান। এরপর থেকে এই বাড়িতে আপ্তাব আলীর পরিবার বসবাস করে আসছেন। শ্রীমুখ গ্রামে মাত্র ৫ জন সদস্য হওয়ায় তারা পার্শ্ববর্তি পশ্চিম নোয়াগাঁও গ্রামের পঞ্চায়েতের সাথে রয়েছেন। গ্রামটির যাতায়াত ব্যবস্থা খুবই খারাপ। যাতায়াতের জন্যপ নেই কোন রাস্তা। ছোট একটি আইল দিয়েই যাতায়াত করেন লোকজন। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে এই গ্রামের লোকজন নৌকা ছাড়া বাড়ি থেকে বের হতে পারেন না। শুকনু মৌসুমেও কাদা দিয়ে তাদের চলাচল করতে হয়। ফলে গ্রামের বাসিন্দাদেরকে অনেক দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ছোট গ্রাম হওয়ায় তারা উন্নয়ন বঞ্চিত ও অবহেলিত রয়েছেন বলে মনে করছেন বাসিন্দারা।
এব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য আমির উদ্দিন বলেন, বাংলাদেশে একটি বাড়ি নিয়ে গঠিত এরকম একটি ছোট গ্রাম খুবই কম রয়েছে। এই বাড়ির আশপাশে নিজস্ব কোন জায়গা না থাকায় তাদের কোন রাস্তা নেই। তাই বাধ্য হয়েই তারা একটি ছোট আইল দিয়ে যাতায়াত করেন। তিনি বলেন, গ্রামের বাসিন্দারা যদি রাস্তার জন্য জায়গা ব্যবস্থা করে দেন তাহলে ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে রাস্তা নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহন করা হবে।

am-accountancy-services-bbb-1

সর্বশেষ সংবাদ