সোমবার, ১৫ অক্টোবর, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
বিশ্বনাথে বিভিন্ন পূজা মন্ডপ পরিদর্শনে ইউএনও  » «   বিশ্বনাথে শিশু কন‌্যাকে অপহরণকালে জনতার হাতে আটক ১  » «   বিশ্বনাথে অজ্ঞাতনামা নারী হত্যা মামলা পুনঃতদন্তের জন্য ওসি’কে আদালতের নির্দেশ  » «   বিশ্বনাথে রামপাশা ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন সম্পন্ন  » «   স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য নির্বাচিত যমজ দুই ভাই মাফী ও শাফী  » «   আলোকিত দেশ গঠনে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই – প্রতিমন্ত্রী মান্নান  » «   বিশ্বনাথে ট্রাক ড্রাইভারকে মারধর করার অভিযোগ : এমপির বিরুদ্ধে মিছিল-পাল্টা মিছিল  » «   বিশ্বনাথে প্রবাসীর উদ্যোগে হুইল চেয়ার ও সেফটি জ্যাকেট বিতরণ  » «   বিশ্বনাথে বিএনপি নেতা আব্দুল হাই গ্রেফতার  » «   বিশ্বনাথে পূজা মন্ডপে এমপি ইয়াহইয়া চৌধুরী সংবর্ধিত ও বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন  » «   পিস্তল’সহ বিশ্বনাথের যুবক গ্রেফতার  » «   বিশ্বনাথ ডেফোডিল এসোসিয়েশনের যুগপূর্তি অনুষ্ঠান সম্পন্ন  » «   শান্তি-সম্প্রীতি বজায় রাখতে আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর হস্তক্ষেপ কামনা করলেন মিরগাঁও গ্রামবাসী  » «   বিশ্বনাথের রামপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নতুন ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন  » «   বিশ্বনাথে আইন-শৃংখলা কমিটির সভায় ‘ভূয়া সনদে শিক্ষক নিয়োগে’ নিন্দা প্রকাশ  » «  

বিশ্বনাথে যে গ্রামের জনসংখ্যা মাত্র ৫ জন…

এমদাদুর রহমান মিলাদ :: সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার খাজাঞ্চী ইউনিয়নের একটি গ্রাম ‘শ্রীমুখ’। এই গ্রামের মোট জনসংখ্যা হলেন মাত্র ৫জন। এর মধ্যে রয়েছেন ১ জন পুরুষ, ৩ জন মহিলা ও ১টি শিশু। সরকারী গেজেটভূক্ত এই গ্রামে স্বাধীনতার পূর্ব থেকেই বসবাস করে আসছেন একটি মাত্র পরিবার।
জানা গেছে, খাজাঞ্চী ইউনিয়নরে ৫নং ওয়ার্ডের অর্ন্তগত তেলিকোনা ও পশ্চিম নোয়াগাঁও গ্রামের মধ্যবর্তি গ্রাম হচ্ছে ‘শ্রীমুখ’। এক সময়ে উক্ত গ্রামে (শ্রীমুখ) একটি হিন্দু পরিবার বসবাস করতেন। ১৯৬৪ সালে রায়টের সময় ওই হিন্দু পরিবার তাদের বাড়িটি বর্তমান বাসিন্দা আপ্তাব আলীর পূর্ব পুরুষের কাছে বিক্রি করে অন্যত্র চলে যান। এরপর থেকে এই বাড়িতে আপ্তাব আলীর পরিবার বসবাস করে আসছেন। শ্রীমুখ গ্রামে মাত্র ৫ জন সদস্য হওয়ায় তারা পার্শ্ববর্তি পশ্চিম নোয়াগাঁও গ্রামের পঞ্চায়েতের সাথে রয়েছেন। গ্রামটির যাতায়াত ব্যবস্থা খুবই খারাপ। যাতায়াতের জন্যপ নেই কোন রাস্তা। ছোট একটি আইল দিয়েই যাতায়াত করেন লোকজন। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে এই গ্রামের লোকজন নৌকা ছাড়া বাড়ি থেকে বের হতে পারেন না। শুকনু মৌসুমেও কাদা দিয়ে তাদের চলাচল করতে হয়। ফলে গ্রামের বাসিন্দাদেরকে অনেক দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ছোট গ্রাম হওয়ায় তারা উন্নয়ন বঞ্চিত ও অবহেলিত রয়েছেন বলে মনে করছেন বাসিন্দারা।
এব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য আমির উদ্দিন বলেন, বাংলাদেশে একটি বাড়ি নিয়ে গঠিত এরকম একটি ছোট গ্রাম খুবই কম রয়েছে। এই বাড়ির আশপাশে নিজস্ব কোন জায়গা না থাকায় তাদের কোন রাস্তা নেই। তাই বাধ্য হয়েই তারা একটি ছোট আইল দিয়ে যাতায়াত করেন। তিনি বলেন, গ্রামের বাসিন্দারা যদি রাস্তার জন্য জায়গা ব্যবস্থা করে দেন তাহলে ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে রাস্তা নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহন করা হবে।

am-accountancy-services-bbb-1

সর্বশেষ সংবাদ