শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
বিশ্বনাথ ব্লাড সোসাইটি’র সেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি পালিত  » «   বিশ্বনাথে সাজ্জাদুর রহমান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালন  » «   সবাইকে শতভাগ খাঁটি দেশ প্রেমিক হতে হবে -শফিক চৌধুরী  » «   শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় বিশ্বনাথে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালন  » «   বিশ্বনাথে গাড়ি দূর্ঘটনায় যুবক নিহত  » «   বিশ্বনাথের রামপাশায় তাফসীরুল কুরআন সংস্থা’র উদ্যেগে ফ্রি খতনা প্রদান  » «   বিশ্বনাথে ১৩২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্টুডেন্ট কাউন্সিল নির্বাচন সম্পন্ন  » «   উপজেলা নির্বাচন : বিশ্বনাথের ৭ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল, ১৫ প্রার্থীর বৈধ  » «   বিশ্বনাথের ১০টি হাওর-খাল পুনঃখননের দাবিতে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান  » «   বিশ্বনাথে সিদ্ধ বকুলতলায় অন্তর্ধান মহোৎসবে মানুষের ঢল  » «   বিশ্বনাথে শিক্ষার্থীদের মাঝে স্কুল ড্রেস-ব্যাগ-ছাতা বিতরণ করলেন শফিক চৌধুরী  » «   বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ৩ পদে ২২ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল  » «   বিশ্বনাথে ভাইস-চেয়াম্যান প্রার্থী জুবেল আহমদের মনোনয়নপত্র জমা  » «   বিশ্বনাথে ভাইস-চেয়াম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ফখরুল আহমদ  » «   বিশ্বনাথে চেয়ারম্যান প্রার্থী সুহেল আহমদ চৌধুরীর মনোনয়নপত্র জমা  » «  

গাড়ির মেয়াদোত্তীর্ণ গ্যাস সিলিন্ডার টাইম বোমা থেকে ভয়ংকর

মোঃ ফজল খান ::

গাড়ির মেয়াদোত্তীর্ণ গ্যাস সিলিন্ডার টাইম বোমা থেকে ভয়ংকর হয়। হ্যা! আপনার অজান্তে প্রতিদিন পরিবহণ নিয়ে শহর, বন্দর, আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে বেড়াতে যাচ্ছেন। আপনার মনে কোন ভয় নেই। শুধু ভয় একটাই পাচ্ছেন সড়ক দুর্ঘটনা, তাই তো? কিন্তু আপনি যে পরিবহণ নিয়ে ঘোরাফেরা করছেন, সেটাতে গ্যাস (CNG) রাখার জন্য একটি সিলিন্ডার রয়েছে। তা কি আপনি জানেন? ঐ সিলিন্ডারের মেয়াদ মাত্র ৫ বৎসর, সেটা কী জানেন? ৫ বৎসর পর এটি বিষাক্ত বোমায় পরিনত হয়। যা টাইম বোমা থেকে ভয়ংকর হয়। যখন তখন বিস্ফোরণ হতে পারে। মেয়াদ উত্তীর্ণ ঐ সিলিন্ডার কেউ পরীক্ষা করে পরিবহণ নিয়ে চলাফেরা করেন না জানি। নাভানা কোম্পানি, নোভা কোম্পানি, টাটা কোম্পানি এই সিলিন্ডার গুলো তৈরি করেছে। তাদের সর্ত মতে- ৫ বৎসরের গ্যারান্টি দিয়ে একটি গ্যারান্টি কার্ড দিয়ে থাকেন গাড়ির মালিক পক্ষকে। ৫ বৎসর পর তাদের কোন দায়বার নেই। অথচ ৮৫% প্রতিটা গাড়িতে ৫ বৎসর মেয়াদ উত্তীর্ণ সিলিন্ডার নিয়ে প্রতিদিন মানুষ নিয়ে যাতায়াত করে। কখন জানি বিস্ফোরণ হবে। তবে এটা দেখার দায়িত্ব ট্রাফিক পুলিশের। গাড়ির অন্যান্য কাগজের সাথে গাড়িতে থাকা সিলিন্ডারের মেয়াদ আছে কী না সেটাও দেখা জরুরী। কারণ- কোন যাত্রী গ্যাস সিলিন্ডার বিষয়ে অবগত নয়। কিন্তু ট্রাফিক পুলিশ সিলিন্ডারের বিষয়ে কোন কাগজ বা গ্যারান্টি কার্ড দেখেন না। প্রশাসন এদিকে নজর দেওয়া খুবই জরুরী হয়ে পরেছে। আমরা বিভিন্ন সময় পত্র পত্রিকায় দেখি- সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হয়ে গাড়িতে থাকা অনেক যাত্রী আহত- নিহত হয়েছেন। পুলিশ প্রশাসন গুরুত্বের সাথে বিষয়টি দেখার জন্য অনুরোধ করছি। এবং যাত্রীরা সিলিন্ডার বিষয়ে ড্রাইভারের সাথে কথা বলে গাড়িতে যাতায়াত করুন। এবং গাড়িতে গ্যাস (CNG) নেওয়ার সময় সব যাত্রীরা গাড়ি থেকে নেমে যাবেন। নির্দিষ্ট স্থানে অনন্ত ১০০ হাত দূরে থাকবেন। কারণ গ্যাস লোড নেওয়ার সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হবার সম্ভাবনা বেশি। আমি দেখেছি- গাড়িতে গ্যাস নেওয়ার সময় আলসে করে অনেক যাত্রী গাড়ি থেকে নামেন না। ড্রাইভারও গাড়ি থেকে নামার জন্য কিছু বলেন না। অনেক ড্রাইভার বলেন- নামার প্রয়োজন নেই, কোন সমস্যা হবে না। তারাতারি চলে যাওয়ার জন্য একথা ড্রাইভার বলে। এটা মোটেই ঠিক নয়। গাড়ির মালিক পক্ষ অনন্ত গ্যাস সিলিন্ডারের মেয়াদ উত্তীর্ণ হলে তারাতারি সিলিন্ডার পরিবর্তন করে নিবেন। মানুষ চলে গেলে ফিরিয়ে আনতে পারবেন না। অনন্ত এই কথা মনে রাখবেন এবং আমরা সাধারণ যাত্রীরা সচেতন হলে, সবাই সচেতন হবেন। মনে রাখবেন- সময়ের চেয়ে জীবনের মূল অনেক বেশি।

লেখক- আহবায়ক, বাঁচাও বাসিয়া নদী ঐক্য পরিষদ।

am-accountancy-services-bbb-1

সর্বশেষ সংবাদ