বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার আন্তর্জাতিক দিবসে বিশ্বনাথে র‌্যালী-সভা  » «   বিশ্বনাথে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা : বখাটে গ্রেপ্তার  » «   সংক্ষিপ্ত সফরে শফিক চৌধুরী ও পংকি খান’র যুক্তরাজ্য যাত্রা  » «   বিশ্বনাথে ডাকাত দলের সাথে গুলাগুলিতে ৫ পুলিশ আহত : অস্ত্রসহ ১ ডাকাত গ্রেফতার  » «   বিশ্বনাথে ৫ জুয়াড়ি আটক  » «   বিশ্বনাথে মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় লিডিং ইউনিভার্সিটির ছাত্র নিহত  » «   বিশ্বনাথে পর্নোগ্রাফি ভিডিও রাখায় ৩টি মোবাইল সার্ভিসিং সেন্টারকে জরিমানা  » «   বিশ্বনাথে দু’পক্ষের মারামারিতে মৎস্য ব্যবসায়ী নিহত  » «   বিশ্বনাথে জঙ্গিবাদ সচেতনতায় দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্বনাথ থেকে স্কুলছাত্র নিখোঁজ  » «   আ’লীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিশ্বনাথে র‌্যালী-সভা  » «   বিশ্বনাথের পশ্চিম ধলিপাড়া গ্রামের পানি নিষ্কাশনে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবিতে স্মারকলিপি  » «   কুলাউড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত ২ : আহত ২৫০  » «   বিশ্বনাথের সড়কগুলো সংস্কারের দাবীতে মানববন্ধন  » «   বিশ্বনাথে হেক্সাস’র সার্টিফিকেট বিতরণ  » «  

গানের সত্ত্ব নিয়ে ২ প্রবাসীর মধ্যকার বিরোধ নিস্পত্তি

th-16বিশ্বনাথনিউজ২৪:: ‘নিষ্টুর বন্ধুরে, পাষাণ বন্ধুরে তর মনে কি দয়া মায়া নাই ওরে’ গানের সত্ত্ব নিয়ে গীতিকার বাউল ফারুক মিয়া ও প্রবাসী রহিম উদ্দিনের মধ্যে চলমান দ্বন্দ নিরশন হয়েছে। উভয় পক্ষের তথ্য প্রমান যাচাই-বাচাই শেষে গানটির সত্ত্ব কুয়েত প্রবাসী গীতিকার ফারুক মিয়ার পক্ষে রায় প্রদান করা হয়েছে। যুক্তরাজ্য প্রবাসী গীতিকার আছাব আলীর হস্তক্ষেপে বিরোধটি নিস্পত্তি হয়েছে।
জানা গেছে, কুয়েত প্রবাসী গীতিকার বাউল ফারুক মিয়া ২০১২ সালের ৯ নভেম্বর ‘নিষ্টুর বন্ধুরে, পাষাণ বন্ধুরে তর মনে কি দয়া মায়া নাই ওরে’ গানটি রচনা করেন। ২০১৩ সালে দিরাইয়ের বাউল মোশাহিদ ভান্ডারীর কন্ঠে গাওয়া হয়। ২০১৪ সালের নভেম্বর মাসে স্ব-রচিত (নিজের লেখা) ২৯টি গান নিয়ে ‘প্রেম জ্বালা’ নামে একটি স্মারক প্রকাশ করেন গীতকার বাউল ফারুক মিয়া। ওই স্মারকে ২১ নাম্বারে ছাপা হয় উক্ত গানটি। পরবর্তীতে চলতি বছরের ২০ অক্টোবর গীতিকার ফারুক মিয়া তার রচিত ৫০টি গান দিয়ে ২য় বারের মতো আরেকটি স্মারক প্রকাশ করেন। ওই স্মারকের ২৯ নাম্বারে ‘নিষ্টুর বন্ধুরে, পাষাণ বন্ধুরে তর মনে কি দয়া মায়া নাই ওরে’ বিচ্ছেদ গানটি প্রকাশিত হয়। কিšুÍ সম্প্রতি গীতিকার ফারুক মিয়ার রচিত ‘নিষ্টুর বন্ধুরে, পাষাণ বন্ধুরে তর মনে কি দয়া মায়া নাই ওরে’ গানটি ভিডিও রেকডিং করে যুক্তরাজ্য প্রবাসী রহিম উদ্দিনের নামে বাউল শফিক উদ্দিনের ফেসবুক আইডিতে শুনা যায়। এরপর গানের সত্ত্ব¡ নিয়ে গীতিকার ফারুক মিয়া ও রহিম উদ্দিনের মধ্যে দ্বন্ধের সৃষ্টি হয়। ফেসবুকে উভয় পক্ষের মধ্যে চলে পাল্টাপাল্টি লেখালেখি।
বিষয়টি নিষ্পত্তি করার জন্য যুক্তরাজ্য প্রবাসী গীতিকার আছাব আলী উদ্যোগ গ্রহণ করেন। এরপর চলে উভয় পক্ষের তথ্য-প্রমানাদি যাচাই-বাচাই। সকল প্রমানাদি পর্যালোচনা শেষে গানটির সত্ত্বের রায় গীতিকার ফারুক মিয়ার পক্ষে যায়।
গীতিকার ফারুক মিয়া ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী রহিম উদ্দিনের মধ্যে গানের সত্ত্ব নিয়ে ভুল বুঝাবুঝির ঘটনাটি অনাকাঙ্খিত, এর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে যুক্তরাজ্য প্রবাসী গীতিকার ফারুক মিয়া বলেন, যেহেতু আপোষ-মিমাংশায় বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়েছে, সেহেতু বিষয়টি নিয়ে বাউল সমাজে যাতে কোন ভুল বুঝাবুঝি না হয় সেদিকে সবাইকে স্বজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। আর বিষয়টি সুন্দর ভাবে নিষ্পত্তি হওয়ায় তিনি সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

am-accountancy-services-bbb-1

সর্বশেষ সংবাদ