সোমবার, ২১ জানুয়ারি, ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
আশুগঞ্জ আদর্শ স্কুল এন্ড কলেজে নতুন ভবনের উদ্বোধন করলেন শফিক চৌধুরী  » «   বৈরাগী বাজারে পুলিশের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতার দাবি : এলাকাবাসীর সভা  » «   বিশ্বনাথে দেড় হাজার লোককে অলংকারী ইউনিয়ন ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের ফ্রি চিকিৎসা  » «   বিশ্বনাথ ইউনিয়নের ১৯টি স্কুলের শিক্ষার্থীদের অংশ্রহনে আন্ত:প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রিড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্বনাথে রামসুন্দর স্কুল মাঠে তাফসীরুল কুরআন মাহফিল অনুষ্ঠিত  » «   সহযোগিতা অব্যাহত রাখতে মুহিবুর রহমানের আহবান  » «   বিশ্বনাথে এলাকাবাসীর বহুদিনের লালিত স্বপ্ন পূরণে ‘চাউলধনী স্কুল এন্ড কলেজ’র যাত্রা শুরু  » «   বিশ্বনাথের রামপাশায় ১৩তম ইউনিয়ন ক্রিকেট লীগের উদ্বোধন  » «   বিশ্বনাথে লজ্জতুননেছা উচ্চ বিদ্যালয়ে স্কাউট’র ৪র্থ দীক্ষা ও তাবু জলসা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত  » «   বিশ্বনাথে ওয়ান পাউন্ট হসপিটালের উদ‌্যোগে ফ্রি চিকিৎসা সেবা প্রদান  » «   বিশ্বনাথে দুই বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার  » «   বিশ্বনাথে পানি সংরক্ষণের জন্য নিজ জমিতে বোরো চাষিদের পুকুর খনন!  » «   বিশ্বনাথে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান : ৯টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা  » «   আল্লামা ফুলতলী’র ১১তম ঈসালে সওয়াব মাহফিল সম্পন্ন  » «   জগন্নাথপুরে প্রয়াত সামাদ আজাদের ৯৭তম জন্ম বার্ষিকী উদযাপন  » «  

গানের সত্ত্ব নিয়ে ২ প্রবাসীর মধ্যকার বিরোধ নিস্পত্তি

th-16বিশ্বনাথনিউজ২৪:: ‘নিষ্টুর বন্ধুরে, পাষাণ বন্ধুরে তর মনে কি দয়া মায়া নাই ওরে’ গানের সত্ত্ব নিয়ে গীতিকার বাউল ফারুক মিয়া ও প্রবাসী রহিম উদ্দিনের মধ্যে চলমান দ্বন্দ নিরশন হয়েছে। উভয় পক্ষের তথ্য প্রমান যাচাই-বাচাই শেষে গানটির সত্ত্ব কুয়েত প্রবাসী গীতিকার ফারুক মিয়ার পক্ষে রায় প্রদান করা হয়েছে। যুক্তরাজ্য প্রবাসী গীতিকার আছাব আলীর হস্তক্ষেপে বিরোধটি নিস্পত্তি হয়েছে।
জানা গেছে, কুয়েত প্রবাসী গীতিকার বাউল ফারুক মিয়া ২০১২ সালের ৯ নভেম্বর ‘নিষ্টুর বন্ধুরে, পাষাণ বন্ধুরে তর মনে কি দয়া মায়া নাই ওরে’ গানটি রচনা করেন। ২০১৩ সালে দিরাইয়ের বাউল মোশাহিদ ভান্ডারীর কন্ঠে গাওয়া হয়। ২০১৪ সালের নভেম্বর মাসে স্ব-রচিত (নিজের লেখা) ২৯টি গান নিয়ে ‘প্রেম জ্বালা’ নামে একটি স্মারক প্রকাশ করেন গীতকার বাউল ফারুক মিয়া। ওই স্মারকে ২১ নাম্বারে ছাপা হয় উক্ত গানটি। পরবর্তীতে চলতি বছরের ২০ অক্টোবর গীতিকার ফারুক মিয়া তার রচিত ৫০টি গান দিয়ে ২য় বারের মতো আরেকটি স্মারক প্রকাশ করেন। ওই স্মারকের ২৯ নাম্বারে ‘নিষ্টুর বন্ধুরে, পাষাণ বন্ধুরে তর মনে কি দয়া মায়া নাই ওরে’ বিচ্ছেদ গানটি প্রকাশিত হয়। কিšুÍ সম্প্রতি গীতিকার ফারুক মিয়ার রচিত ‘নিষ্টুর বন্ধুরে, পাষাণ বন্ধুরে তর মনে কি দয়া মায়া নাই ওরে’ গানটি ভিডিও রেকডিং করে যুক্তরাজ্য প্রবাসী রহিম উদ্দিনের নামে বাউল শফিক উদ্দিনের ফেসবুক আইডিতে শুনা যায়। এরপর গানের সত্ত্ব¡ নিয়ে গীতিকার ফারুক মিয়া ও রহিম উদ্দিনের মধ্যে দ্বন্ধের সৃষ্টি হয়। ফেসবুকে উভয় পক্ষের মধ্যে চলে পাল্টাপাল্টি লেখালেখি।
বিষয়টি নিষ্পত্তি করার জন্য যুক্তরাজ্য প্রবাসী গীতিকার আছাব আলী উদ্যোগ গ্রহণ করেন। এরপর চলে উভয় পক্ষের তথ্য-প্রমানাদি যাচাই-বাচাই। সকল প্রমানাদি পর্যালোচনা শেষে গানটির সত্ত্বের রায় গীতিকার ফারুক মিয়ার পক্ষে যায়।
গীতিকার ফারুক মিয়া ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী রহিম উদ্দিনের মধ্যে গানের সত্ত্ব নিয়ে ভুল বুঝাবুঝির ঘটনাটি অনাকাঙ্খিত, এর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে যুক্তরাজ্য প্রবাসী গীতিকার ফারুক মিয়া বলেন, যেহেতু আপোষ-মিমাংশায় বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়েছে, সেহেতু বিষয়টি নিয়ে বাউল সমাজে যাতে কোন ভুল বুঝাবুঝি না হয় সেদিকে সবাইকে স্বজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। আর বিষয়টি সুন্দর ভাবে নিষ্পত্তি হওয়ায় তিনি সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

am-accountancy-services-bbb-1

সর্বশেষ সংবাদ