মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
বিশ্বনাথের মাছুখালী বাজারে পুলিশের উঠান বৈঠক  » «   সিলেট-২ আসনে কে কোন প্রতীক পেলেন..  » «   বিশ্বনাথে ‘ধানের শীষ’র প্রধান নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধন  » «   বিশ্বনাথ মুক্ত দিবস আজ  » «   সহকারী পুলিশ সুপার পদে পদোন্নতি পেলেন ওসি রফিকুল হোসেন  » «   বিশ্বনাথে অপরাধ নির্মূলের লক্ষে পুলিশ প্রশাসনের মতবিনিময়  » «   সিলেট-২ আসনে বিএনপির চুড়ান্ত মনোনয়ন পেলেন ইলিয়াসপত্নী লুনা  » «   আ.ন.ম. শফিক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কেমুসাস’র সভাপতি নির্বাচিত  » «   খাজাঞ্চী একাডেমী এন্ড উচ্চ বিদ‌্যালয়ে দুই প্রবাসীর সঙ্গে মতবিনিময়  » «   লুনার বিরুদ্ধে ইসি’তে দায়েরকৃত অভিযোগ খারিজ  » «   নাজিরবাজারে অগ্নিকান্ডে ৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পুড়ে ছাই : ৩০ লাখ টাকার ক্ষতি  » «   ওসমানীনগরে ব্যবসায়ীর বাসায় ডাকাতি : স্বর্ণালঙ্কারসহ মালামাল লুট  » «   বিশ্বনাথে পূর্ব চান্দসীর কাপন ও বিদাইসুলপানি গ্রামবাসীর সঙ্গে পুলিশের মতবিনিময়  » «   বিশ্বনাথের প্রীতিগঞ্জ বাজারে পুলিশ প্রশাসনের মতবিনিময়  » «   আপিলেও টিকলো না মুহিব-সরদার’র মনোনয়ন  » «  

ভেসে যাওয়া মেয়েকে ১০ বছর পর ফিরে পেলেন মা

60705_int-1২০০৪ সালে সুনামি হয়েছিল ইন্দোনেশিয়ায়। তখন ছোট মেয়ে রাউদাতুল জান্নাহ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিল তার পরিবারের কাছ থেকে। বাবা-মা ভেবেছিলেন তাদের আদরের মেয়েটি বোধহয় পানিতে ডুবে মারাই গেছে। কিন্তু দীর্ঘ ১০ বছর পর মেয়ে ফিরে এসেছে তার আপনজনদের কাছে।
তখন রাউদাতুল জান্নাহর বয়স মাত্র চার। তারা থাকতেন ইন্দোনেশিয়ার আচেহ এলাকায়। ২০০৪ সালে সুনামি আঘাত হানে ওই অঞ্চলে। পরিবারটি তখন একটি কাঠের গুঁড়ি ধরে ভাসছিল। একসময় কাঠের গুঁড়ি থেকে হাত ফসকে যায় দুই শিশুর। জান্নাহ ও তার ভাই ভেসে যায় সুনামির জলে।
এরপর দীর্ঘ দিন ধরে ছেলেমেয়ে দু’জনকে খুঁজে বেরান তাদের বাবা-মা। কিন্তু তাদের দেখা মেলেনি। সবাই ধরেই নিয়েছিলেন হয়ত তাদের মৃত্যু হয়েছে। তারা খোঁজাখুঁজি ছেড়ে দেন।
গত জুন মাসে জান্নাহর মামা পাশের জেলায় নিজের ভাগ্নির মতো একজনকে দেখে অবাক হয়ে যান। এক নারী তাকে দেখভাল করছে। পরে অনুসন্ধান করে জানতে পারেন, ওই মেয়ে আচেহ প্রদেশের বাসিন্দা। সুনামির সময় জেলেরা তাকে তার মায়ের সাথে উদ্ধার করেছিল। এরপর তিনি জান্নাহর মা জামালিয়াহকে সেখানে নিয়ে যান। মেয়েকে দেখেই চিনতে পারেন মা। জড়িয়ে ধরে বলেন,‘হ্যাঁ, এটাই তো আমার মেয়ে। কত দিন ধরে খুঁজছি।’ কিন্তু বললেই তো আর হবে না। তার জন্য চাই বাস্তবসম্মত প্রমাণ। তাই মা ও মেয়ের ডিএনএ টেস্টের প্রস্তুতি চলছে। এ দিকে মেয়ে জান্নাহকে খুঁজে পাওয়ার পর নতুন করে ছেলের অনুসন্ধান শুরু করেছেন তারা।

am-accountancy-services-bbb-1

সর্বশেষ সংবাদ