সোমবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ সংবাদ
জগন্নাথপুরে কৃষকদের মাঝে কৃষি উপকরন বিতরণ  » «   বিশ্বনাথে রাস্তা উন্নয়ন কাজের নামফলক ভাংচুর  » «   বিশ্বনাথে তথ্য প্রযুক্তি আইনের মামলার আসামীদের ছবি দিয়ে পোস্টারিং : আ’লীগের বিবৃতি  » «   বিশ্বনাথে প্রতিপক্ষের হামলায় মাদক ব‌্যবসায়ী নিহত  » «   বিশ্বনাথে ‘মিরেরচর-পুরাণগাঁও-হাসনাজির সড়ক’ দ্রুত সংস্কারের আশ্বাস  দিলেন এমপি এহিয়া  » «   ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ধর্ষণ মামলার আসামি নিহত  » «   বিশ্বনাথে ৩টি গরু চুরি  » «   বিশ্বনাথে কিশোরী নিখোঁজের ৫দিন পর উদ্ধার : আটক ২ : মামলা দায়ের  » «   প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সংবর্ধনা  » «   বিশ্বনাথে মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা প্রদান ও ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা’ বই বিতরণ  » «   বিশ্বনাথে দ্রুত ধান কাটার আহবান জানিয়ে প্রশাসনের মাইকিং  » «   বিশ্বনাথে বজ্রপাতে দুটি গরুর মৃত্যু  » «   জাতীয় পার্টিকে ছাড়া ক্ষমতার স্বপ্ন দেখা ভূল -ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী  » «   বিশ্বনাথে তরুণীকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার : মামলা দায়ের  » «   বালাগঞ্জে ‘দেশরত্ম শেখ হাসিনা সেতু’র ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন  » «  

ভেসে যাওয়া মেয়েকে ১০ বছর পর ফিরে পেলেন মা

60705_int-1২০০৪ সালে সুনামি হয়েছিল ইন্দোনেশিয়ায়। তখন ছোট মেয়ে রাউদাতুল জান্নাহ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিল তার পরিবারের কাছ থেকে। বাবা-মা ভেবেছিলেন তাদের আদরের মেয়েটি বোধহয় পানিতে ডুবে মারাই গেছে। কিন্তু দীর্ঘ ১০ বছর পর মেয়ে ফিরে এসেছে তার আপনজনদের কাছে।
তখন রাউদাতুল জান্নাহর বয়স মাত্র চার। তারা থাকতেন ইন্দোনেশিয়ার আচেহ এলাকায়। ২০০৪ সালে সুনামি আঘাত হানে ওই অঞ্চলে। পরিবারটি তখন একটি কাঠের গুঁড়ি ধরে ভাসছিল। একসময় কাঠের গুঁড়ি থেকে হাত ফসকে যায় দুই শিশুর। জান্নাহ ও তার ভাই ভেসে যায় সুনামির জলে।
এরপর দীর্ঘ দিন ধরে ছেলেমেয়ে দু’জনকে খুঁজে বেরান তাদের বাবা-মা। কিন্তু তাদের দেখা মেলেনি। সবাই ধরেই নিয়েছিলেন হয়ত তাদের মৃত্যু হয়েছে। তারা খোঁজাখুঁজি ছেড়ে দেন।
গত জুন মাসে জান্নাহর মামা পাশের জেলায় নিজের ভাগ্নির মতো একজনকে দেখে অবাক হয়ে যান। এক নারী তাকে দেখভাল করছে। পরে অনুসন্ধান করে জানতে পারেন, ওই মেয়ে আচেহ প্রদেশের বাসিন্দা। সুনামির সময় জেলেরা তাকে তার মায়ের সাথে উদ্ধার করেছিল। এরপর তিনি জান্নাহর মা জামালিয়াহকে সেখানে নিয়ে যান। মেয়েকে দেখেই চিনতে পারেন মা। জড়িয়ে ধরে বলেন,‘হ্যাঁ, এটাই তো আমার মেয়ে। কত দিন ধরে খুঁজছি।’ কিন্তু বললেই তো আর হবে না। তার জন্য চাই বাস্তবসম্মত প্রমাণ। তাই মা ও মেয়ের ডিএনএ টেস্টের প্রস্তুতি চলছে। এ দিকে মেয়ে জান্নাহকে খুঁজে পাওয়ার পর নতুন করে ছেলের অনুসন্ধান শুরু করেছেন তারা।

am-accountancy-services-bbb-1

সর্বশেষ সংবাদ